খুলনা | রবিবার | ২৫ অক্টোবর ২০২০ | ১০ কার্তিক ১৪২৭ |

Shomoyer Khobor

নগরীতে ৫৪৮ বাড়ির তলাবিহীন ল্যাট্রিনের বর্জ্য যাচ্ছে ড্রেনে : দূষিত হচ্ছে পরিবেশ

এস এম আমিনুল ইসলাম | প্রকাশিত ১২ মার্চ, ২০২০ ০১:১১:০০

মহানগরীতে এক হাজার ২৫৫টি বাসা-বাড়ির সেপটিক ট্যাংকি, পিট ল্যাটিন, তলা বিহীন ল্যাট্রিনের মল সরাসরি ড্রেনে নির্গত হচ্ছে। ফলে দুর্গন্ধে পরিবেশ দূষণসহ আশেপাশে বসবাসকারীদের স্বাস্থ্যহানীর কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ২০১৯ সালে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে পরিচালিত এক জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে। তবে কর্পোরেশন বলছে, জরিপের সময় অবহিত করায় ৭০৭টি বাড়ির মালিক ল্যাট্রিন মেরামত করেছে। তবে তলাবিহীন ল্যাট্রিনের ৫৪৮ বাড়ির মালিককে নোটিশ দেয়ার পরও সাড়া মেলেনি। তাই তাদের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় দফায় নোটিশ প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।জরিপে উল্লেখ করা হয়েছে, কর্পোরেশন এলাকার আয়তন ৪৫ দশমিক ৬৫ বর্গকিলোমিটার। এ অধিক্ষেত্রে ১১৬৫ দশমিক ৮৪ কিলোমিটার ড্রেন রয়েছে। মোট হোল্ডিং-এর সংখ্যা ৬৬ হাজার ৪৬৯টি। এসব হোল্ডিং-এর মধ্যে এক হাজার ২৫৫টি বাড়ির সেপটিক ট্যাংকি, পিট ল্যাটিন, তলা বিহীন ল্যাট্রিনের মল সরাসরি ড্রেনে নির্গত হচ্ছে। যার কারনে দুর্গন্ধে এলাকার পরিবেশ দুষণ হচ্ছে। অনেক সময় আশেপাশে বসবাসকারী প্রতিবেশীদের স্বাস্থ্যহানীও ঘটছে। তবে মৌখিকভাবে অবহিত করায় ৭০৭টি বাড়ির মালিক ল্যাট্রিন মেরামত করে। কিন্তু তলাবিহীন ল্যাট্রিনের ৫৪৮ বাড়ির মালিককে নোটিশ দেয়ার পরও সাড়া দিচ্ছে না। বাড়িগুলোর মধ্যে রয়েছে কেসিসি’র ১নং ওয়ার্ডে ৩৯টি, ২নং ওয়ার্ডে ১৮টি, ৩নং ওয়ার্ডে ১৪টি, ৪নং ওয়ার্ডে ৪২টি, ৬নং ওয়ার্ডে ১৪টি, ৭নং ওয়ার্ডে ১৪টি, ৮নং ওয়ার্ডে ২৮টি, ৯নং ওয়ার্ডে ১৪টি, ১১নং ওয়ার্ডে ১০টি, ১২নং ওয়ার্ডে ১৯টি, ১৩নং ওয়ার্ডে ২৮টি, ১৪নং ওয়ার্ডে ১৮টি, ১৫নং ওয়ার্ডে ৪৯টি, ১৬নং ওয়ার্ডে ৩২টি, ১৭নং ওয়ার্ডে ৩১টি, ১৮নং ওয়ার্ডে ৭টি, ১৯নং ওয়ার্ডে ১৩টি, ২০নং ওয়ার্ডে ২১টি, ২১নং ওয়ার্ডে ১০টি, ২২নং ওয়ার্ডে ১২টি, ২৩নং ওয়ার্ডে ৫টি, ২৪নং ওয়ার্ডে ১০টি, ২৫নং ওয়ার্ডে ৮টি, ২৬নং ওয়ার্ডে ১০টি, ২৭নং ওয়ার্ডে ৫টি, ২৮নং ওয়ার্ডে ১৪টি, ৩০নং ওয়ার্ডে ২৮টি ও ৩১নং ওয়ার্ডে ৩৫টি।
সিটি কর্পোরেশন অধ্যাদেশ-২০০৯ এর ৪১ ধারায় তৃতীয় তফসিলের উপ-ধারায় ১(৯) স্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে যে সকল ঘরবাড়িতে পায়খানা বা প্রস্রাবখানা আছে সে সকল ঘরবাড়ির মালিক তা কর্পোরেশনের সন্তুষ্টি অনুযায়ী সঠিক অবস্থায় রাখবে। কোনভাবেই বসবাসরত এলাকায় পরিবেশ দুষণ করা যাবে না। কেউ এ ধরনের কাজ করলে তা হবে আইনের পরিপন্থী। 
এ ব্যাপারে কেসিসি’র সহকারী কঞ্জারভেন্সি অফিসার নূরুন্নাহার এ্যানি বলেন, বাড়ির সেপটিক ট্যাংকি, পিট ল্যাটিন, তলা বিহীন ল্যাট্রিনের মল সরাসরি ড্রেনে নির্গত করা যাবে না। কারণ এতে পরিবেশ দূষিত হয়। যার কারনে সড়ক দিয়ে চলাচল করা যায় না। 
তিনি বলেন, ৭০৭টি বাড়ির সেপটিক ট্যাংকী ও পিট ল্যাটিনে সামান্য সমস্যা ছিলো। তারা মেরামত করে কর্পোরেশনকে অবহিত করেছে। তবে তলাবিহীন ৫৪৮ বাড়ির মল সরাসরি ড্রেনে বা ছড়িয়ে-ছিটিয়ে এসে পড়ছে। যা মারাত্মকভাবে পরিবেশ দূষণ করছে। এসব বাড়ির মালিককে নোটিশ দেয়ার পরও সাড়া মেলেনি। তাই তাদের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় দফায় নোটিশ প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে নোটিশ প্রাপ্তির এক মাসের মধ্যে বাড়ির মালিকরা এ নির্দেশ পালনে ব্যর্থ হলে পরিবেশ আইনে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ








ভাঙনে আয়তন হারাচ্ছে সুন্দরবন

ভাঙনে আয়তন হারাচ্ছে সুন্দরবন

০২ জুলাই, ২০১৭ ০১:৪০

নিয়ম মানছে না খুলনার অনেক ইটভাটা

নিয়ম মানছে না খুলনার অনেক ইটভাটা

১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭ ০২:০০




ব্রেকিং নিউজ