খুলনা | রবিবার | ২৫ অক্টোবর ২০২০ | ১০ কার্তিক ১৪২৭ |

Shomoyer Khobor

চিকিৎসকদের মনোবলের জন্য হুমকি, মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা

করোনা চিকিৎসায় সহযোগিতা, বেসরকারি পাঁচ প্রতিষ্ঠানের প্রায় কোটি টাকার বিল!

বশির হোসেন | প্রকাশিত ০৭ জুন, ২০২০ ০০:৪০:০০

খুলনায় করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য জেলা প্রশাসনের সভায় নুরনগরে অবস্থিত ডায়াবেটিক হাসপাতালকে নির্ধারণ করা হয়েছিল এপ্রিলের শুরুতে। একই সাথে এসব রোগীদের সেবা দেয়া চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের কোয়ারেন্টাইনে থাকার জন্য দু’টি আবাসিক হোটেলকে নির্ধারণ করা হয় সেই সময়ে। জনস্বার্থে ব্যবহার শুরু হলেও এই প্রতিষ্ঠানগুলি খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কাছে জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে গত দুইমাসে প্রায় এক কোটি টাকা ভাড়া দাবি করেছে। বিষয়টিকে অমানবিক হিসাবে মন্তব্য করেন হাসপাতাল পরিচালক। জেলা প্রশাসক এ বিষয়ে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণে এডিসি রেভিনিউকে প্রধান করে বিশেষ একটি কমিটি গঠন করেছেন। এদিকে খুমেক হাসপাতালের পাশে নবনির্মিত একটি ভবনে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গত ২ এপ্রিল জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে খুলনা ডায়াবেটিক হাসপাতালকে করোনা চিকিৎসার জন্য ডেডিকেশন করা হয়। খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকের নেতৃত্বে ঐ সভায় হোটেল মিলেনিয়াম ও সিএসএস আভা সেন্টারকে চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টাইনে থাকার জন্য নির্ধারণ করেন প্রশাসন। সে হিসাবে গত ৪ এপ্রিল থেকে করোনা চিকিৎসার জন্য হাসপাতালটিকে প্রস্তুতের ব্যবস্থা করে সিভিল সার্জন ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের যৌথ উদ্যোগে। এ উদ্যোগে ডায়াবেটিক সমিতির কোন জনবল ও টেকনিক্যাল সহযোগিতা করেননি বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে। এরপর গত ১৯ এপ্রিল প্রথম খুলনা মেডিকেল কলেজের দুই চিকিৎসককে সেখানে প্রথম রোগী হিসাবে রাখা হয়। গতকাল শনিবার পর্যন্ত সেখানে ৫৮ জন করোনা রোগী চিকিৎসাধীন ছিল। তবে খোঁজ নিয়ে জানা যায় বেসরকারি একটি সমিতির মাধ্যমে চলা এই হাসপাতাল এখন তাদের হাসপাতাল ব্যবহারের জন্য দৈনিক ৫৬ হাজার টাকা দাবি করে একটি চিঠি দিয়েছে জেলা প্রশাসকের নিকট। গত ৬৪ দিন ব্যবহারের জন্য ৩৫ লক্ষ ৮৪ হাজার টাকা দাবি করা হয়েছে। একই সাথে সারা দেশে লকডাউনে বন্ধ থাকা সিএসএস আভা সেন্টারে অবস্থান করেন নিয়মিত চিকিৎসা দিতে যাওয়া স্বাস্থ্যকর্মীরা। ৪ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত প্রতিদিন ৪৯ হাজার ১৮৮ টাকা করে গত ৬৪ দিনে ৩১ লক্ষ ৪৮ হাজার ৩২ টাকা। সিভিল সার্জন অফিসের বেশ কয়েকজন চিকিৎসক হোটেল রয়্যালের ৭ম তলায় কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। এ হোটেল ভাড়া বাবদ ১২ লক্ষ ৮৪ হাজার ৮১৫ টাকা বিল দিয়েছে ৩০ মে পর্যন্ত। যা চলতি মাসে আরও বাড়ছে। এছাড়া ২১ এপ্রিল থেকে ৩১ মে পর্যন্ত খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কয়েকজন চিকিৎসক কোয়ারেন্টিনে ছিলেন মজিদ স্মরণী রোডের হোটেল মিলেনিয়ামে। তারা বিল দিয়েছে ৩ লক্ষ ২৪ হাজার টাকার। এসব প্রতিষ্ঠান প্রায় এক কোটি টাকা বিল দিয়েছে।
খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে হোটেলগুলো প্রশাসনের মাধ্যমে চিকিৎসকদের সেখানে পাঠানো হয়েছে। বিশেষ মুহুর্তে সরকারি প্রয়োজনে মানবিক কারণে এসব প্রতিষ্ঠান প্রথমে থাকতে দিলেও এখন তারা অমানবিকভাবে কোটি টাকার বিল উপস্থাপন করেছে।
খোঁজ নিয়ে গেছে এসব বিলের জন্য পরবর্তী করণীয় নির্ধারণে একটি কমিটি নির্ধারণ করেছে খুলনা জেলা প্রশাসক মোঃ হেলাল হোসেন। হোটেলগুলোর ভাড়ার বিষয় পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করবে এই কমিটি। 
খুমেক হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ মুন্সি রেজা সেকেন্দার বলেন সরকারি প্রয়োজনে সরাসরি করোনা রোগীদের চিকিৎসা দেয়া চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টাইনে রাখার জন্য এসব হোটেল নেয়া হয়েছিলো প্রশাসনের মাধ্যমে। কিন্তু সুযোগ সন্ধানি এসব হোটেল মালিক কোটি টাকার বিল দিয়েছে, যা অত্যন্ত অমানবিক। এসব টাকা দেয়ার কোন সামর্থ্য নেই আমাদের। আশাকরি প্রশাসন এই বিষয়ে কার্যকরি পদক্ষেপ নেবে। এখন থেকে হাসপাতালের নবনির্মিত একটি ভবনে এসব চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।  এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে সকল কার্যক্রমও শুরু করা হচ্ছে।
খুলনা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডাঃ মেহেদী নেওয়াজ বলেন, জনস্বার্থে এসব প্রতিষ্ঠানকে রিকুজিশন করা হয়েছিলো তখন। কিন্তু বেসরকারি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের জন্য সরকারি কোন ব্যবস্থা থাকলেও এসব প্রতিষ্ঠানের মানবিক হওয়া উচিত। তবে জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে যে কমিটি করা হয়েছে, আশাকরি এ কমিটি প্রয়োজনীয় সকল কিছু সঠিকভাবে সম্পন্ন করে একটি সুষ্ঠু সমাধান করবেন। 
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন সময়ের খবরকে বলেন, তারা (প্রতিষ্ঠনগুলো) পৃথক বিল দিয়েছে। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব)-এর নেতৃত্বে একটি যাচাই-বাছাই কমিটি করে দেয়া হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের বিল যাচাই-বাছাই তারা করবেন। পরবর্তিতে সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ