খুলনা | রবিবার | ০৯ অগাস্ট ২০২০ | ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭ |

Shomoyer Khobor

মামাতো ভাই’র স্ত্রীসহ আটক ২

আড়ংঘাটার তেলিগাতী মধ্যপাড়ায় পরকিয়ার জেরে যুবককে গলা কেটে হত্যা 

ফুলবাড়ীগেট ও আড়ংঘাটা প্রতিনিধি  | প্রকাশিত ৩১ জুলাই, ২০২০ ০০:২২:০০


নগরীর আড়ংঘাটা থানাধীন তেলিগাতী মধ্যপাড়ায় আমজাদ শেখের পুত্র বাচ্চু শেখ (৩২) কে বৃহস্পতিবার ভোরে নিজ ঘরের মধ্যে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মামাতো ভাই নবীর ভূঁইয়ার স্ত্রী নাছরিন ও গুড্ডু নামের দু’জনকে আটক করেছে। পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। নিহতের লাশ খুমেক মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহতের স্বজন এবং এলাকাবাসী জানান, মামাতো ভাইয়ের স্ত্রীর সাথে পরকিয়ার জেরে এ হত্যাকান্ড সংঘটিত হতে পারে।
এলাকাবাসী ও নিহতের পরিবার জানায়, তেলিগাতী মধ্যপাড়ার আমজাদ শেখের পুত্র বাচ্চু শেখ নিজ ঘরের মধ্যে ঘুমানো ছিল। বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৪টায় অজ্ঞাত দুষ্কৃতিকারী ধারাল অস্ত্র দিয়ে গলায় আঘাত করলে সে প্রাণ বাঁচাতে ঘর থেকে দৌড়ে বাইরে এসে পড়ে যায়। সেখানে তাকে গলা কেটে ফেলে রেখে যায়। পাশের ঘরে থাকা বাচ্চুর পিতা আমজাদ শেখ ছেলের গোংগানোর শব্দ শুনে বাইরে বেরিয়ে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পায়। এক পর্যায়ে তাকে (বাচ্চু শেখ) নিজ ঘরের সামনে আনতেই সে মারা যায়। 
এলাকাবাসী বলেন, বাচ্চু শেখ ৬/৭ বছর আগে দুবাই থেকে দেশে ফিরে আসে। মাদকের সাথে জড়িয়ে পড়ে বাচ্চু। বাচ্চু শেখ মাদকাসক্ত থাকলেও তার তেমন কোন শত্র“ ছিলনা। পার্শ্ববর্তী তার মামাতো ভাই নবীর ভূঁইয়ার বাড়িতে অবাধ যাতায়াতের সুবাদে তার (নবীর ভূইয়া) স্ত্রী এক সন্তানের জননী নাছরিন বেগম (২৫)-এর সাথে পরকিয়ায় জড়িয়ে পড়ে বাচ্চু শেখ। এ বিষয়ে লোক জানাজানি হলে নবীর বাচ্চুকে তাদের বাসায় আসতে নিষেধ করা হয়। গত ৬/৭ দিন আগে বাচ্চু শেখের সাথে নবীর স্ত্রী নাছরিনকে সমাজ পরিপন্থি সম্পর্ক অবস্থায় দেখে ফেলে তারই একমাত্র সন্তান মাদ্রাসা পড়ুয়া ছাত্র মামুন (৯)। ঐ ঘটনার পরদিন নাছরিনের মা এসে মেয়েকে নিয়ে যায়। গত ৩/৪ দিন আগে ঘরের মালপত্রসহ নবীর তার ছেলেকে নিয়ে অন্যত্র চলে যায়। এ সময় সে বাচ্চুকে এর চরম মাশুল দিতে হবে বলেও হুমকি দেয়। 
নবীরের মা গোলেনুর বেগম ও ভাই মহসিন ভূঁইয়া বলেন, নাছরিন একটা চরিত্রহীনা মহিলা। বাচ্চুর সাথে নাছরিনের অবৈধ সম্পর্ক ছিল এটা আমরা বুঝতে পেরে নবীরকে বোঝানোর চেষ্টা করি কিন্তু সে বিশ^াস করতে চাইতো না। সর্বশেষ গত এক সপ্তাহ আগে নবীর কাজে চলে গেলে বেলা ১১টায় নবীরের ঘরে প্রবেশ করে বাচ্চু। নবীরের ছেলে মামুন ঘরে এসে তার মায়ের সাথে বাচ্চুকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলে। এ সময় ছেলেকে দু’জনে গলা চেপে হত্যার চেষ্টা করে কিন্তু সে সময় তার চিৎকারে আমরা ছুটে আসলে বাচ্চু পালিয়ে যায়। এ ঘটনার পর গত ৩ দিন আগে ছেলে মামুনকে বাঁচাতে নবীর গ্রাম ছেড়ে চলে যায়। 
এদিকে বাচ্চু শেখ হত্যার ঘটনায় যাব্দিপুর বাবার বাড়ি থেকে মামাতো ভাইয়ের স্ত্রী নাছরিন এবং তেলিগাতী মধ্যপাড়া থেকে গুড্ডুকে আটক করে পুলিশ।  হত্যাকান্ডের খবর পেয়ে সকালেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ডিসি নর্থ মোল্লা জাহাঙ্গীর আলম, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার সোনালী সেনসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ।
এ ব্যাপারে আড়ংঘাটা থানার অফিসার্স ইনচার্জ কাজী রেজাউল করিম বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায় এবং লাশটির সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির পর ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। পারিবারিক কলহ থেকে এ হত্যাকাণ্ড হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তিনি জানান, নিহত বাচ্চু শেখ স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ আমজাদ শেখের পুত্র। তিনি বিদেশে ছিলেন। 
ওসি আরও জানান হত্যাকান্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে কারণ অনুসন্ধান চলছে। তদন্তের পর হত্যাকান্ডের প্রকৃত কারণ জানা যাবে। তিনি বলেন, নিহত বাচ্চু শেখের নামে থানায় মাদকের মামলা রয়েছে। তবে জিজ্ঞাসাবাদে জন্য নাছরিন ও গুড্ডুকে আটকের কথা তিনি স্বীকার করেননি। 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ