খুলনা | সোমবার | ২৬ অক্টোবর ২০২০ | ১১ কার্তিক ১৪২৭ |

Shomoyer Khobor

দেশের বিভিন্ন স্থলবন্দরে পেঁয়াজ আমদানি শুরু  হলেও বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করেনি কোন ট্রাক 

বেনাপোল প্রতিনিধি | প্রকাশিত ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:১৭:০০


ভারত থেকে দেশের বিভিন্ন স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আসা শুরু হলেও দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোল দিয়ে প্রবেশ করেনি পেঁয়াজের কোন ট্রাক। ভারতের পেট্রাপোল বন্দর এলাকায় আটকে থাকা পেঁয়াজ বোঝাই ট্রাকের লোড এক্সপোর্ট (লিইও) করা না থাকায় বেনাপোল বন্দরে কোন ট্রাক আসতে পারেনি। 
বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট স্টাফ এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান জানান, নিষেধাজ্ঞায় আটকে পড়া পেঁয়াজের একটি অংশ ভারত সরকার ছেড়ে দেওয়ার সম্মতি দিলেও শনিবার বেনাপোলে কোন ট্রাক আসছে না এবং কবে নাগাদ আসবে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেনি ওপারের রপ্তানিকারক সংশ্লিষ্টরা। 
তিনি বলেন, শুক্রবার ভারতের সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ইনডিরেক্ট ট্যাক্সেস এন্ড কাস্টমস কর্তৃপক্ষ (সিবিআইসি) যে নির্দেশনা দিয়েছিল শনিবার সকালে পেট্রাপোল কাস্টমসকে তারা আরও একটি নির্দেশনা দিয়েছেন। ওই নির্দেশনায় বলা হয়েছে গত সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) বন্দর এলাকার যে সকল পেঁয়াজের ট্রাকের লোড এক্সপোর্ট (লিইও) করা ছিল শুধুমাত্র সেই ট্রাকগুলো বাংলাদেশে যাবে। এ সময় পেট্রাপোল বন্দর অভ্যন্তরে পাঁচটি পেঁয়াজের ট্রাক ছিল। এর মধ্যে একটি ট্রাকের লিইও করা ছিল। পেঁয়াজে পচন ধরায় বৃহস্পতিবার  রপ্তারিকারক সেই পেঁয়াজের লিইও বাতিল করে। এতে পেট্রাপোল বন্দরে লিইও করা কোন পেঁয়াজের ট্রাক না থাকায় শনিবার ভারত থেকে বেনাপোল বন্দরে কোন পেঁয়াজের ট্রাক আসেনি। 
ভারতের পেট্রাপোল ক্লিয়ারিং এজেন্ট স্টাফ ওয়েলফেয়ার এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তী বলেন, পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধে ভারতের আদেশ প্রত্যাহার করতে আহ্বান জানানোর পর পূর্বের  ঋণপত্রের (এলসি) পেঁয়াজ বাংলাদেশে রপ্তানির নির্দেশনা দিয়ে শুক্রবার রাতে বন্দর ও কাস্টমসসহ বিভিন্ন দফতরে পত্র দিয়েছেন সিবিআইসি। সেই পত্রে বলা হয়েছে ১৪ সেপ্টেম্বর ভারতের সব শুল্ক কাস্টমসে নির্দেশনা দেওয়া হয় বাংলাদেশে ৭৫০ মার্কিন ডলারের নিচে পেঁয়াজ রপ্তানি করা যাবে না। বাংলাদেশের আমদানিকারকদের দাবি ও সরকারি তৎপরতায় ১৫ সেপ্টেম্বর ভারতের রপ্তানিকারকরা পেঁয়াজ রপ্তানির আবেদন জানান। তারই পেক্ষিতে ১৮ সেপ্টেম্বর পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দেয় ভারতের কেন্দ্রীয় শুল্ক অধিদপ্তর। তবে শনিবার সকালে ১৪ সেপ্টেম্বর বন্দর এলাকার যে সকল পেঁয়াজের ট্রাকের লোড এক্সপোর্ট (লিইও) করা ছিল শুধুমাত্র সেই ট্রাকগুলো বাংলাদেশে যাবে এমন নির্দেশনা দেওয়ার পর এই জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে নতুন করে লিইও করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। তবে নতুনভাবে লিইও করার পর সেটি কার্যকর হবে কিনা সেটা নিশ্চিত করতে পারেনি কার্তিক চক্রবর্তী ।  
বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমসের কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা আকসির মোল্লা জানান, নিয়মানুযায়ী ভারত থেকে কোন পণ্যবাহী ট্রাক বাংলাদেশে প্রবেশের সময় কাস্টমস থেকে গেট পাশ নিতে হয়। সকাল থেকে ভারতীয় সিএন্ডএফ এজেন্টের পক্ষ থেকে কোন গেট পাশ গ্রহণ না করায় শনিবারও পেঁয়াজের কোন চালান আসেনি বেনাপোল বন্দরে। কবে আসবে তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ