খুলনা | শুক্রবার | ১৫ জানুয়ারী ২০২১ | ২ মাঘ ১৪২৭ |

Shomoyer Khobor

বিজয়ের মাস  ডিসেম্বর

মাওলা বক্স | প্রকাশিত ০৫ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:২৬:০০


আজ ৫ ডিসেম্বর, ১৯৭১ এদিনে বিধ্বস্ত হয় বাংলাদেশে পাকিস্তানি বাহিনীর অধিকাংশ বিমান। ভারতীয় মিত্র বাহিনীর জঙ্গি বিমানগুলো সারাদিন ধরে অবাধে আকাশে উড়ার পর পাক বাহিনীর সামরিক ঘাঁটিগুলোতে প্রচন্ড আক্রমণ চালায়, অকেজো করে দেয় বিমান বন্দরগুলো। ভারতীয় বিমান বাহিনীর হিসাব মতে, ১২ ঘণ্টায় ২৩২ বার তেজগাঁও এবং কুর্মিটোলা বিমান ঘাঁটিতে ৫০ টনের মত বোমা ফেলা হয়। পাকিস্তানি বাহিনীর কনভয়ের ওপরও ভারতীয় মিত্র বাহিনীর জঙ্গি বিমান আক্রমণ চালায়। এতে পাক-বাহিনীর ৯০টি গাড়ি ধ্বংস হয়। এছাড়াও পাকিস্তানি বাহিনীর সৈন্য বোঝাই কয়েকটি লঞ্চ এবং স্টিমার ধ্বংস হয়। বঙ্গোপসাগরে নৌবাহিনীর যৌথ কমান্ডের সফল আক্রমণে ধ্বংস হয় পাকিস্তানি সাবমেরিন ‘গাজী’। সাবমেরিনটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র হতে পাকিস্তান ধার হিসাবে নিয়েছিল। পাক সেনাবাহিনীর পরাজয়ে এটি একটি বড় আঘাত হিসেবে দেখা দেয়।
এদিনে নৌবাহিনীর যৌথ কমান্ড চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরের সব নিরপেক্ষ রাষ্ট্রের জাহাজগুলোকে বন্দর ত্যাগের পরামর্শ দেয়। তারা নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দিতেও অপারগতা প্রকাশ করে। প্রধান হুঁশিয়ারিটি ছিল চট্টগ্রাম বন্দর সম্পর্কে। বলা হয়, আপনারা সবাই চট্টগ্রাম বন্দর ছেড়ে চলে যান। আপনাদের স্বার্থ ও নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে আমরা শনিবার তেমন বোমা বর্ষণ করিনি। আজ আপনাদের বের হয়ে যাওয়ার সুযোগ দেয়া হচ্ছে। কাল আমরা প্রচন্ডভাবে আক্রমণ চালাব। সুতরাং কাল থেকে আপনাদের নিরাপত্তা সম্পর্কে আমরা নিশ্চয়তা দিতে পারব না। 
এ সতর্ক বাণীতে দু’টি কাজ হলো-এক. বিশ্বের সব দেশ বুঝল বাংলাদেশের বন্দরগুলো রক্ষা করার কোন ক্ষমতা আর পাক বাহিনীর নেই; দুই ভারতীয় নৌবাহিনীর জাহাজ ও বিমানগুলো সব বন্দরকে ঘায়েল করার সুযোগ পেল। এদিকে তখন স্থলে মিত্রবাহিনীও এগিয়ে চলেছে। পাক বাহিনীর বিভিন্ন ইউনিটের মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রায় বিচ্ছিন্ন। ভারতীয় বাহিনী প্রধান সড়কগুলো দিয়ে না এগিয়ে বিভিন্ন সেক্টরের প্রধান সড়কের কতগুলো জায়গায় অবরোধ সৃষ্টি করে। তাই ঢাকার সঙ্গে কুমিল্লা, চট্টগ্রাম এবং সিলেট-নাটোরের সঙ্গে ঢাকা এবং রংপুর আর যশোরের সঙ্গে নাটোর ও রাজশাহীর যোগাযোগ সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। শুধু ঢাকার সঙ্গে যশোর ও খুলনার যোগাযোগ ব্যবস্থা তখনো অব্যাহত ছিল। কতগুলো ঘাঁটিতে সেদিন লড়াইও হয়। একটি বড় লড়াই হয় লাকসামে। আরেকটা লড়াই হয় ঝিনাইদহের কাছে কোটচাঁদপুরে। দু’টি লড়াইয়ে পাক বাহিনী ব্যাপকভাবে পরাজিত হয়। এর ফলে বিধ্বস্ত অবস্থায় তারা পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়।
ভারতের ৫৭ মাউন্টেন ডিভিশন আখাউড়ার যুদ্ধে মুক্তিবাহিনীর সাথে মিলিত হয়। ভারতীয় মিত্র সেনাবাহিনী আখাউড়ার দক্ষিণ এবং পশ্চিমাংশ দিয়ে অবরোধ করে। এখানে পাকবাহিনী মিত্রবাহিনীর সাথে যুদ্ধে টিকতে না পেরে আত্মসমর্পণ করে। ফলে আখাউড়া সম্পূর্ণরুপে শত্র“মুক্ত হয়। এই যুদ্ধে লেফটেন্যান্ট বদিউজ্জামান, সুবেদার আশরাফ আলী খান, সিপাহী আমীর হোসেন, সিপাহী রুহুল আমীন, সিপাহী সাহাব উদ্দিন ও সিপাহী মুস্তাফিজুর রহমান শহীদ হন। আখাউড়া মুক্ত হওয়ার পর কিছু পাকিস্তানি সৈন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। এদিন ১৬০ জন পাকিস্তানি সৈন্য মিত্রবাহিনীর হাতে নিহত হয়।
এদিন নিরাপত্তা পরিষদের পুনরায় যে অধিবেশন বসে তাতে সোভিয়েট ইউনিয়নের এক প্রস্তাবে বলা হয় পূর্ব পাকিস্তানে এমন এক ‘রাজনৈতিক নিষ্পত্তি’ প্রয়োাজন যার ফলে বর্তমান সংঘর্ষের অবসান নিশ্চিত ভাবেই ঘটবে এবং পাক-বাহিনীর যে সহিংসতার দরুণ পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে তাও অবিলম্বে বন্ধ করা প্রয়োজন। একমাত্র পোল্যান্ড প্রস্তাবটি সমর্থন করে। চীন ভোট দেয় বিপক্ষে। অন্য সকল সদস্য ভোটদানে বিরত থাকে। ঐ দিন আরও আটটি দেশের পক্ষ থেকে যুদ্ধবিরতি ও সৈন্য প্রত্যাহারের পক্ষে নিরাপত্তা পরিষদে আর একটি প্রস্তাব উত্থাপিত হয়। এবার সোভিয়েত ইউনিয়ন তার দ্বিতীয় ভেটো প্রয়োগ করে। একই সময়ে ‘তাস’ মারফত এক বিবৃতিতে সোভিয়েট সরকার ‘পূর্ব বাংলার জনগণের আইনসঙ্গত অধিকার ও স্বার্থের স্বীকৃতির ভিত্তিতে’ সঙ্কটের রাজনৈতিক সমাধানের দাবি জানান, এই সংঘর্ষ সোভিয়েট সীমান্তের সন্নিকটে সংঘটিত হওয়ায় ‘এর সঙ্গে সোভিয়েত নিরাপত্তার প্রশ্ন জডড়িত, বলে উল্লেখ করে এবং পরিস্থিতির অবনতি রোধকল্পে বিবদমান পক্ষদ্বয়ের যে কোনটির সঙ্গে জডড়িত হওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য বিশ্বের সকল দেশের প্রতি আহ্বান জানান।
এদিকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে উত্তপ্ত অবস্থা চিন্তিত করে তোলে প্রবাসী সরকারকে। কারণ এদিনও ভারত বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়নি। ভারতের প্রতিরক্ষা সচিব শ্রী কেবি লাল ‘বাংলাদেশ একটি বাস্তবতা বলে’ উল্লেখ করে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়া শুধুমাত্র সময়ের ব্যাপার বলে সাংবাদিকদের কাছে মন্তব্য করেন। রাজনৈতিক এ পরিস্থিতি মুক্তিযোদ্ধাদের যাতে দুর্বল না করে তোলে তাই মুক্তিবাহিনীর প্রধান সেনাপতি কর্নেল ওসমানী জাতির উদ্দেশ্যে বেতার ভাষণ দেন।
এদিকে ‘পূর্ব পাকিস্তান’-এর পুতুল শাসক গভর্নর ডাঃ মালিক দেশবাসীর কাছে সাহায্যের আবেদন জানান। তিনি বলেন, দেশ আক্রান্ত। ভারতীয়দের সহযোগিতায় কিছু বিশ্বাসঘাতক দেশ আক্রমণ করেছে। এ দেশের সেনাবাহিনী তাদের প্রতিরোধ করছে। তাদের সাহায্য করার জন্য প্রতিরক্ষা তহবিল করা হযয়েছে। সে তহবিলে মুক্তহস্তে সাহায্য করার জন্য তিনি সবার প্রতি আহ্বান জানান। তবে তার আহ্বানে কেউ যে এগিয়ে আসেননি তা বলার আর অপেক্ষা রাখে না।
৭১ এর ডিসেম্বর মাসের প্রতিটি ক্ষণ, প্রতিটি দিন এক একটি মহা কাব্য। বাংলা মায়ের দামাল ছেলেরা বুক পেতে দিয়ে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করেছেন সে দিন। অসীম সাহসে লড়াই করে পরাজিত করেছে দখলদার পাকিস্তানী বর্বর সেনাবাহিনীকে। জাতির কাছে তারা চির স্মরণীয় হয়ে রইবে। তাদের এই অবদান কোনদিন আমরা ভুলবে না।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ





পাকিস্তানের টেস্ট দলে ৯ নতুন মুখ

পাকিস্তানের টেস্ট দলে ৯ নতুন মুখ

১৫ জানুয়ারী, ২০২১ ১৯:০৭


দ্রুততম মানব ইসমাইল, মানবী শিরিন

দ্রুততম মানব ইসমাইল, মানবী শিরিন

১৫ জানুয়ারী, ২০২১ ১৮:৩৪




দ্বিতীয় ধাপে ৬০ পৌরসভার ভোট কাল

দ্বিতীয় ধাপে ৬০ পৌরসভার ভোট কাল

১৫ জানুয়ারী, ২০২১ ১৭:২১