খুলনা | শুক্রবার | ১৫ জানুয়ারী ২০২১ | ২ মাঘ ১৪২৭ |

Shomoyer Khobor

আপনি কি প্রাত্যহিক জীবনে প্রায়শঃ বিভিন্ন বিষয় ভুলে যান? জেনে নিন তার কারণ ও প্রতিকার

প্রকাশ চন্দ্র অধিকারী, মনোবিজ্ঞানী | প্রকাশিত ০২ জানুয়ারী, ২০২১ ০০:০০:০০

কথায় বলে- জীবনের জন্য স্মৃতির যেমন প্রয়োজন, তেমনি জীবনকে সহজ করতে মাঝে মাঝে বিস্মৃতির ও প্রয়োজন হয়ে পড়ে। কিন্তু বিস্মৃতি যখন মানসিক ক্ষমতার অভাবকে নির্দেশ করে, তখন তাহা আমাদের  প্রাত্যহিক জীবনে সমস্যা হিসেবে প্রতিভাত হয়। সাধারণতঃ স্মৃতির সমস্যা বা অনিচ্ছাকৃত ভুলে যাওয়ার সমস্যা কে স্মৃতিভ্রংশ বা ডিমেন্সিয়া হিসেবে আখ্যা দেওয়া হয়। স্মৃতিভ্রংশ বা ডিমেন্সিয়া বলতে যা বোঝায় তা হলো, ব্যক্তির বৌদ্ধিক ক্ষমতা গুলোর ক্রমাবনতি যা তার পারিবারিক, সামাজিক ও পেশাগত জীবনকে ব্যহত করে।
ডিমেন্সিয়া বা স্মৃতিভ্রংশের লক্ষণ: 
স্মৃতি ভ্রংশের সঙ্গে ব্যক্তির বয়সের একটি গভীর সম্পর্ক বিদ্যমান। বয়স বাড়ার সাথে সাথে মানুষের মানসিক সক্ষমতার সুশৃঙ্খল ধারা অবনতির দিকে গমন করে। ডিমেন্সিয়ার লক্ষণ গুলোর মধ্যে অন্যতম হলো- (১) সাম্প্রতিক ঘটনা সমূহ মনে রাখতে না পারা। (২) কোন কাজ করার সময় ব্যাঘাত সৃষ্টি হলে কাজটি অসমাপ্ত থাকলে পরে তাহা সম্পাদন করতে ভুলে যাওয়া। (৩) রোগীর পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে সমস্যা বা শালীন ভাবে পোষাক পরতে ভুলে যাওয়া। (৪) বাজারে বা পরিচিত কোন স্থানে গিয়ে রোগীর পুনরায় বাড়ি ফিরে আসতে সমস্যা। (৫) রোগীর বিচার বুদ্ধি ত্র“টিপূর্ণ হয়, পরিস্থিতি মূল্যায়ণ ক্ষমতা কমে যায়, পরিকল্পনাগত সমস্যা দেখা দেয়। (৬) রোগীর নৈতিকমান কমে যায়, কর্মপ্রবনতাগুলোর নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা হ্রাস পায়। (৭) ব্যক্তির কথা-বার্তার মধ্যে সমন্বয়হীনতা দেখা দেয়, অনেক সময় পরিচিত বস্তুর নাম ভুলে যায়। (৮) এসব রোগীর মধ্যে আবেগের বৈচিত্র্যহীনতা, বিষণœতার লক্ষণ, বুদ্ধিনাশের লক্ষণ, মেজাজের উঠা নামা দেখা দেয়। (৯) অনেকের মধ্যে সমাজ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেবার প্রবনতা দেখা দেয়।   
ডিমেন্সিয়া বা স্মৃতিভ্রংশের কারণ: 
১.    বয়সজনীত কারণ: বয়স্কদের মধ্যে শতকরা ৫০ ভাগ লোকের স্মৃতি ভ্রংশের অন্যতম কারণ হলো আলজাইমরি ব্যধি।এ প্রকার রোগে রোগীর মস্তিষ্ক কোষের বিশেষ করে করটেক্স সংলগ্ন হিপোক্যাম্পাসের নিকটবর্তী এলাকার অপরিবর্তনীয় ক্ষতি সাধিত হয়, ফলে রোগী অনেক কিছু ভুলে যায়। তাহাছাড়া আলজিমার ব্যধিতে রোগীর স্নায়বিক বার্তাবাহক-সেরোটনিন ,নর-এপিনেফ্রিন বা এসিটিলকোলিনের পথ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ফলে ব্যক্তির মানসিক ক্ষমতার অবনতি ঘটে যা স্মৃতিভ্রংশ ঘটায়। তাহা ছাড়া বয়স্কদের পিক্ ডিজিজ, হ্যান্টিংটনের কোরিয়া ইত্যাদি কারণে ও ডিমেন্সিয়া হতে পারে।
২.    মানসিক চাপজনীত কারণ: যে সব ব্যক্তি তুলনামূলক ভাবে বেশি পরিমান মানসিক চাপে থাকে, তাদের মধ্যে স্মৃতিভ্রংশ জনীত সমস্যা দেখা দিতে পারে।
৩.    সংক্রামক ব্যাধিজনীত কারণ: বিভিন্ন সংক্রামক ব্যধি যেমন-এনসেফেলাইটিসের কারণে ও ডিমেন্সিয়া হতে পারে।
৪.    মস্তিষ্কের সমস্যা: মস্তিষ্কের আঘাত, মস্তিষ্কে অর্বুদ ও পুষ্টির অভাব বিশেষ করে ভিটামিন ‘১২- এর অভাব জনীত কারণে স্মৃতিভ্রংশ হতে পারে। 
৫.    অপদ্রব্য গ্রহণজনীত সমস্যা: দীর্ঘ দিন ধূমপান করলে বা এলকোহাল ও অন্যান্য অপদ্রব্য গ্রহণ করলে স্মৃতি ভ্রংশ হতে পারে।
৬.    বিভিন্ন শারীরিক রোগ জনীত সমস্যা: ব্যক্তির অন্তঃক্ষরা গ্রন্থি সমস্যা, থাইরয়েড সমস্যা, হার্ট ডিজিজ ইত্যাদি কারণে স্মৃতিভ্রংশ হতে পারে। 
ডিমেন্সিয়া বা স্মৃতিভ্রংশের চিকিৎসা: 
আলজাইমার ব্যাধির জন্য বিটা এমাইলয়েড-এর সঞ্চালনকে দায়ী করা হয়। তাই বিটা- এমাইলয়েড সঞ্চালনের বন্ধের চেষ্টা করে আলজাইমার থেকে রক্ষার পদক্ষেপ হতে পারে। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা য়ায় যে, যারা ইতোমধ্যে আলজাইমার ব্যাধিতে ভুগছেন, তাদের ভিটামিন ‘ই’ দেওয়া হলে রোগের ক্রমাবনতি অনেকটা রোধ করা সম্ভব। অন্যদিকে যাদের বিভিন্ন প্রকার বিষণœতা বা দুশ্চিন্তা জনীত রোগের কারণে স্মৃতিভ্রংশ ঘটছে -তারা বিষণœ বিরোধী ঔষধ (যেমন- ইসিটালোপ্রাম/ সিটালোপ্রাম/ ফ্লুক্সোটিন) ব্যবহার করে বা এন্টি -এন্জাইটি ড্রাগ-আলপ্রাজোলাম/ লোরাজিপাম/ ক্লোনাজিপাম) ব্যবহার করলে ভাল ফল পাওয়া যেতে পারে। যারা সাময়িক জ্বর বা অন্যান্য সাধারণ অসুস্থতাজনীত কারণে সাময়িক ডিমেন্সিয়ায় আক্রান্ত হন, তারা পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করলে সাময়িক ডিমেন্সিয়া থেকে মুক্ত পেতে পারেন। যারা প্রায় সচারচর পারিবারিক কাজ সমূহ ভুলে যেতে থাকেন, তারা এক টুকরা কাগজে দৈনন্দিন কাজ সমূহ লেখে রাখতে পারেন এবং সময় মত দেখে নিয়ে কাজ সমূহ সম্পাদন করতে পারেন। অভাবে যারা স্মৃতি ভ্রংশে ভুগছেন, পারিবারিক সমর্থনের দ্বারা  তথা পরিবারের সদস্যদের মধ্যে সহোযোগিতা ও সমর্থন বৃদ্ধি করে ডিমেন্সিয়ার রোগীরা কিছুটা উপকার পেতে পারেন।
ডিমেন্সিয়া বা স্মৃতিভ্রংশ যেমন ব্যক্তিগত ভাবে ব্যক্তিকে সমস্যায় পতিত করে, তেমনি তাহা সামাজিক ভাবে ব্যক্তির অবস্থানকে দুর্বল করে তোলে। তাই দেরি না করে ডিমেন্সিয়ার দ্রুত চিকিৎসা করলে ভাল ফলাফল পাওয়া যেতে পারে।
(লেখক: সহকারি অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান, মনোবিজ্ঞান বিভাগ, সরকারি সুন্দরবন আদর্শ কলেজ ,খুলনা।)


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ




চলে গেলেন এক আদর্শিক পুরুষ

চলে গেলেন এক আদর্শিক পুরুষ

২৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ১৫:৩৮



স্মৃতিতে ‘ডলি বু’ 

স্মৃতিতে ‘ডলি বু’ 

১২ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০


আমার দেখা মওলানা ভাসানী

আমার দেখা মওলানা ভাসানী

১৭ নভেম্বর, ২০২০ ০১:৩৩





ব্রেকিং নিউজ



পাকিস্তানের টেস্ট দলে ৯ নতুন মুখ

পাকিস্তানের টেস্ট দলে ৯ নতুন মুখ

১৫ জানুয়ারী, ২০২১ ১৯:০৭


দ্রুততম মানব ইসমাইল, মানবী শিরিন

দ্রুততম মানব ইসমাইল, মানবী শিরিন

১৫ জানুয়ারী, ২০২১ ১৮:৩৪




দ্বিতীয় ধাপে ৬০ পৌরসভার ভোট কাল

দ্বিতীয় ধাপে ৬০ পৌরসভার ভোট কাল

১৫ জানুয়ারী, ২০২১ ১৭:২১