খুলনা | সোমবার | ২৫ জানুয়ারী ২০২১ | ১২ মাঘ ১৪২৭ |

Shomoyer Khobor

জুতা পালিশ থেকে অর্ধ শতাব্দী পর রাষ্ট্রীয় সম্মাননা পাচ্ছেন অশোক দাস

নিজস্ব প্রতিবেদক | প্রকাশিত ১৪ জানুয়ারী, ২০২১ ০০:৫১:০০

ফুটপাতে বসে অল্প পয়সায় কিংবা ফ্রীতে পুরাতন জুতা-স্যান্ডেল প্রাপ্তির পর সেগুলো পালিশ বা সেলাই করে অপেক্ষাকৃত বেশি টাকায় বিক্রির অর্থে সংসারের যাবতীয় খরচ নির্বাহ করতেন বয়োবৃদ্ধ অশোক দাস। খুলনা মহানগরীর চিত্রালী বাজার সংলগ্ন খালিশপুর ইউনিয়ন মাঠের বিপরীতের ফুটপাতে বসে বুট পালিশ ও পুরাতন জুতা ক্রয়-বিক্রয় করতেন তিনি। হারিয়েছেন দুই পুত্র। সঙ্গ ত্যাগ করেছেন আত্মীয়-স্বজনেরাও। স্ত্রীকে নিয়ে জীবনসায়াহ্নের যুদ্ধে হেরে যেতেই বসেছিলেন ৭১’ এর রণাঙ্গনের বীর সেনানী অশোক দাস। ‘বাক’ আবৃত্তি অনুশীলন চক্রের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শ্রাবনের ফেসবুক স্ট্যাটানে সম্পূর্ণ পাল্টে গেল অশোক দাসের পরবর্তী জীবনের বাক। খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের প্রচেষ্ঠায় রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পেতে যাচ্ছেন বাঙালী জাতির সূর্য্য সৈনিক অশোক দাস। দারিদ্র্যতার দাসত্ব থেকে গতকালই মুক্তি পেয়েছেন তিনি।

সুলতান মাহমুদ শ্রাবনের সেই আকুতিমাখা স্ট্যাটাসটি সরাসরি পাঠকের সামনে তুলে ধরছি -

“মুক্তিযুদ্ধের অকুতোভয় বীর সেনা শ্রী অশোক দাশ, বয়সের ভারে বেসামাল। ১৯৭১ সনে বনগাঁতে ট্রেনিং করে অনেকগুলো সম্মুখ যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেন তিনি ৮ নম্বর সেক্টরে ক্যাপ্টেন আরএন মুখার্জির সাথে কাজ করেছেন। স্বাধীনতার ৫০ বছরে তিনি কোনো সম্মাননা দূরে থাক মুক্তিযুদ্ধের সনদ পর্যন্ত পাননি। তিনি একসময় ঠিকাদারি ব্যবসা করতেন। এখন তিনি চিত্রালী বাজার খালিশপুরে ইউনিয়ন মাঠের বিপরীতে ফুটপাতে বসে পুরাতন জুতা স্যান্ডেল বিক্রি করে নিজের রোজগার করে কোনোমতে বেঁচে আছেন। দিনের বেলা মানুষের বাড়ি বাড়ি ঘুরে পুরাতন জুতা স্যান্ডেল ক্রয় করেন। সন্ধ্যায় সেগুলো বিক্রি করেন। দু’টি ছেলে সন্তান এখন মৃত। আমি তার সাথে কথা বলাকালীন বার বার চোখ মুছছিলেন। আমিও নিজেকে সামলাতে পারিনি। অশ্রুসজল চোখে তার সাথে কথা বলছিলাম। আমার বাবা ও শ্বশুর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। তারাও সনদ এবং সরকারি সুযোগ বঞ্চিত মুক্তিযোদ্ধা। আমার ফেসবুকে এমন অনেক বড় মানুষ আছেন যারা সাংবাদিক, যারা সরকারের বিভিন্ন উচ্চপর্যায়ে কর্মরত তাদের এবং কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। এই হতদরিদ্র মুক্তিযোদ্ধা শ্রী অশোক দাশ এর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিলে অন্তত স্বাধীনতা স্বার্থক হবে...”

গত ১১ জানুয়ারি ওই ফেসবুক পোস্টের প্রেক্ষিতে গতকাল বুধবার (১৩ জানুয়ারি) খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন একজন অসহায় ও দরিদ্র বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রতিবেদনকৃত শ্রী অশোক দাসকে ম্যাজিস্ট্রেটের তত্তাবধানে গাড়ী দিয়ে ডিসি অফিসে সম্মানের সাথে নিয়ে আসেন। গত রাতেই তাকে ফোন দেয়া হলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় সরেজমিনে তার সাথে কথা বলে তাকে আনা হলো। তার অসহায় অবস্থার প্রেক্ষিতে তাৎক্ষণিকভাবে জেলা প্রশাসক প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে মুজিববর্ষের গৃহ প্রদানের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। একই সাথে তার মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি প্রাপ্তির আবেদন যাচাই-বাছাইয়ের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করেন। এছাড়াও জেলা প্রশাসক অসহায় বৃদ্ধ শ্রী অশোক দাসকে নগদ আর্থিক সহায়তা ও তার স্ত্রীর কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেন। জীবন সংগ্রামী অশোক দাস অশ্রু-সিক্ত হয়ে পড়েন। গতকাল রাতের সেই মুহুর্তে জেলা প্রশাসকের কক্ষে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন সময়েরখবরকে বলেন, বাঙালী জাতির এই সূর্য্য সন্তানকে অনেক দেরিতে হলেও আমরা মূল্যায়নের সুযোগ পেয়েছি। তার কাছ থেকে মুক্তিযুদ্ধকালীন ও পরবর্তী সময়ের কিছু কাগজপত্র গ্রহন করেছি। সেগুলো সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হবে। যাচাই-বাছাইয়ের পর তাকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে বলে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন জেলা প্রশাসক।

আর সামান্য প্রচেষ্টায় অসামান্য প্রতিদান পাওয়ায় আবেগ-আপ্লুত বাক’র সভাপতি সুলতান মাহমুদ শ্রাবন। তিনি বলেন, অশোক দাস কতটুকু পেয়েছেন বা পাবেন সেটা জানি না। তবে আমি আমার প্রাপ্যটুকু পেয়েছি। জীবনে একটি ভালো কাজ করলেও করতে পেরেছি। সে জন্যই আমার জীবন স্বার্থক। 
 

বার পঠিত

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ






খুলনায় পিস্তলসহ গ্রেফতার ২

খুলনায় পিস্তলসহ গ্রেফতার ২

২৫ জানুয়ারী, ২০২১ ১৮:০০

শীতার্তদের মাঝে শারমিন সালাম

শীতার্তদের মাঝে শারমিন সালাম

২৫ জানুয়ারী, ২০২১ ১৭:৫৭







ব্রেকিং নিউজ







খুলনায় পিস্তলসহ গ্রেফতার ২

খুলনায় পিস্তলসহ গ্রেফতার ২

২৫ জানুয়ারী, ২০২১ ১৮:০০

শীতার্তদের মাঝে শারমিন সালাম

শীতার্তদের মাঝে শারমিন সালাম

২৫ জানুয়ারী, ২০২১ ১৭:৫৭