খুলনা | বুধবার | ০৩ মার্চ ২০২১ | ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭ |

Shomoyer Khobor

সারিকা নিজেই উদ্ভাবন করতে  ইচ্ছুক বিভিন্ন স্বাদের চকলেট

সুরাইয়া ইসলাম মীম  | প্রকাশিত ০৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ ০০:০৮:০০

চকলেট খেতে ভালোবাসে না, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। আমেরিকাসহ পশ্চিমা দেশগুলোতে চকলেটের রয়েছে ব্যাপক চাহিদা। সকল বয়সী ছেলে-মেয়েরা সকাল, বিকেল, রাত বা দিনের যেকোনো সময়ে চকলেটের স্বাদ উপভোগ করতে সদা প্রস্তুত। আমাদের দেশেও বর্তমান সময়ে পিঠা-পুলি-পায়েসের সঙ্গে পায়ে পা মিলিয়ে জোরকদমে এগিয়ে গেছে চকলেটের প্রতি মানুষের অসীম আগ্রহ আর ভালোবাসা। আর এই ভালবাসার চকলেটকে হোমমেইড করে সারিকা তাসনিম কাশিশ গড়ে তুলেছেন ‘চকো বাইটস্’। 
অনার্স চতুর্থ বর্ষে পড়ুয়া সারিকা ক্লাস বন্ধ থাকার কারণেই ২০২০ সালের এই করোনাকালীন সময়েই অলস সময়কে কাজে লাগিয়ে কিছু করার উদ্যোগ নিলেন। খাদ্যপ্রেমী সারিকা এ রকম কোন খাবার নিয়ে কাজ করতে চাইলেন যে খাবারটি অনেক জনপ্রিয় কিন্তু অনন্য বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন অন্যান্য খাবার থেকে। বাইরের শপের কেনা খাবার খাওয়ার অভ্যাস করোনা আসার পরে অনেকটাই কমে গেছে। সেই সুযোগে তিনি স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে গড়ে তোলেন অনলাইনে হোমমেড চকলেটের ব্যবসা। ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা এবং ছয় হাজার টাকা দিয়ে শুরু করেন পেশাদারী চকলেট ব্যবসা নিজের আগ্রহ থেকেই। কাজ করেন হোয়াইট চকলেট, মিল্ক চকলেট, ডার্ক চকলেট, মিক্সড ফ্লেভার চকলেট, নাটি বার চকলেট, ক্যারামেল চকলেট, কোকোনাট বুনবুন, স্ফট সেন্টার ট্রুফেল চকলেট, ড্রাই রোস্টেড ডেট নাট চকলেট, বিভিন্ন ধরনের কাস্টমাইজ চকলেট,  উইশিং কাস্টমাইজড বার চকলেট, কালারিং চকলেটসহ আরো অনেক রকমের ভিন্ন ভিন্ন স্বাদের চকলেট নিয়ে। আর খুব অল্প সময়েই “চকো বাইটস্”-এর চকলেটের সুনাম ছড়িয়ে পড়ে এবং তৈরি হয় ক্রেতাবলয়। 
আজকের এই উদ্যোক্তা হওয়ার পেছনে সবচেয়ে বেশি সহযোগিতা করেছেন তার মা এবং ছোট বোন স্নেহা। সব সময় তাকে তার বাবা সাহস জুগিয়েছেন, অনুপ্রেরণা দিয়েছেন। সকল কাজেই সহযোগীতা করে যাচ্ছেন সারিকার পরিবারের সদস্যবৃন্দ নিরলস ভাবে। 
সারিকা বলেন, চকো বাইটস্ আমার কাছে একটি স্বপ্নের নাম। এই স্বপ্নের ব্যবসার পরিধি সময়ের সাথে সাথে আরো অনেক বড় হবে এটাই চাওয়া। শুরুর দিকে অনেক ছোট আকারে শুরু করলেও চকো বাইটস নিয়ে ধীরে ধীরে বড় কিছু করার ইচ্ছা আছে। তিনি নিজেই উদ্ভাবন করতে ইচ্ছুক বিভিন্ন স্বাদের চকলেট। 
সারিকার স্বপ্ন, একদিন তাঁর ব্যবসার পরিসর আরও বাড়বে। দেবেন একটি বড় কারখানা। শুধুমাত্র খুলনা শহর নয় দেশ বিদেশে ছড়িয়ে পড়বে তাঁর চকো বাইটস্-এর সুনাম। তৈরি হবে নতুন ব্রান্ড। এই উদ্যোগ তার পরবর্তী প্রজন্মকে উৎসাহিত করে নিজেদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠিত করবে এটা তার কাছে অনেক বড় চাওয়া। 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ