খুলনা | বুধবার | ০৩ মার্চ ২০২১ | ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭ |

Shomoyer Khobor

পরিবার ও বন্ধুর উৎসাহে আজ সফলতার শীর্ষে ফারজানা

ফেয়ারি লাইটের ব্যবসা শুনে অনেকেই হাসি বিদ্রুপ করেছেন বিভিন্ন সময়ে

সুরাইয়া ইসলাম মীম  | প্রকাশিত ০৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ ০০:১১:০০

একজন সত্যিকারের বন্ধু সর্বদা সঠিক পরামর্শ দেয়। সমস্যার সময়ে ঢাল হয়ে দাঁড়িয়ে থাকে। খারাপ সময়ে ছায়ার মতো স্থির থাকে এবং সুখ ও দুঃখে অংশ নেয়। ঠিক এভাবেই ফারজানার জীবনে একজন সত্যিকারের বন্ধুর আগ্রহ ও অনুপ্রেরণায় “স্মার্ট গিয়ার বাংলাদেশ”- এর যাত্রা শুরু হয়। ৫০০ টাকার ফেয়ারি লাইট ও ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস দিয়ে শুরু করে এখন ৬৭ হাজার টাকা নিয়ে ব্যবসা করছেন ফারজানা ও তার বন্ধু আবু হুরাইরা। 
ফারজানা খানম আয়শা অনার্স শেষ করেছেন ইতোমধ্যেই। কখনো গুরুত্ব দিয়ে ভাবেননি নিজের ভবিষ্যত নিয়ে। ফারজানার বন্ধু সবসময়ই তাকে বুঝিয়েছেন জীবনে কিছু করা উচিত। অনুপ্রেরণা দিয়েছেন প্রতিটা সময়ে। ফারজানা যখন ফেয়ারি লাইট কিনতে চেয়েছিলেন তখন ঢাকা থেকে ফেয়ারি লাইট ক্রয় করা ব্যয়বহুল মনে হয়েছিল ফারজানার কাছে। তিনি ভেবে দেখলেন খুলনা শহরে কেউ ফেয়ারি লাইট নিয়ে কাজ করছেন না। সবভেবেই সিদ্ধান্ত নিলেন ফেয়ারি লাইট দিয়ে ব্যবসা শুরু করবেন। এরপর তারা ব্যবসায়ের টাকা দিয়েই ব্যবসায়ে বিনিয়োগ করা শুরু করলেন। এ ভাবেই ফেয়ারি লাইটের পাশাপাশি ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস যুক্ত করতে থাকেন। 
দুই বন্ধুর হাত ধরেই স্মার্ট গিয়ার বাংলাদেশ-এর প্রথম যাত্রা শুরু হয়েছিল মাত্র ৫০০ টাকা দিয়ে। ফারজানা এবং হুরাইরার দুইজনের পরিশ্রম ও সঠিক বিনিয়োগে আজ সেই ৫০০ টাকা ৬৭ হাজার টাকায় পরিণত হয়েছে। 
ফারজানা বলেন, প্রথম অর্ডার এসেছিল একটি ফেয়ারি লাইটের। লাইটটির মূল্য ছিল তিনশ’ টাকা। কোন ডেলিভারিম্যান ছিল না প্রথম দিকে। প্রথম ডেলিভারিতে বৃষ্টিতে ভিজে নিজে ডেলিভারি দিয়েছিলাম। অনেক কষ্টের বিনিময়ে প্রথম আয় হয়েছিল ১০০ টাকা। আর এই প্রথম আয়ের অনুভূতি কোটি টাকা থেকেও আমার কাছে বেশি। এই ব্যবসা প্রতিষ্ঠা করার জন্য অনেক পরিশ্রম ছিল আমাদের, কিন্তু আমি থেমে ছিলাম না। মেয়ে হয়ে ফেয়ারি লাইটের ব্যবসা শুনে অনেকেই হাসি বিদ্রুপ করেছেন বিভিন্ন সময়ে। সমাজের কিছু মানুষ মেয়ে মানুষ ব্যবসা করবে এটা সহজ ভাবে অনেকেই মেনে নিতে পারেন না। কিন্তু আমার বন্ধু হুরাইরা আমাকে মানসিকভাবে সবসময়ই সমর্থন দিয়েছেন। সব হাসি তামাশা বিদ্রুপকে পিছে ফেলে আমি আমার স্বপ্নের দিকে এগিয়ে যেতে পেরেছি শুধুমাত্রই আমার বন্ধু হুরাইরার জন্যই। আমার পরিবারও আমাকে উৎসাহিত করে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। 
ফারজানা স্বপ্ন দেখেন, স্মার্ট গিয়ার বাংলাদেশ-কে অনলাইন প্লাটফর্মের পাশাপাশি অফলাইন প্লাটফর্ম এ নেওয়া। বাংলাদেশের সব জেলায় স্মার্ট গিয়ার বাংলাদেশ- এর শাখা তৈরি করার। 
ফারজানা বলেন, প্রতিদিন আপনাকে নানান প্রতিবন্ধকতার মাঝ দিয়ে যেতে হবে। মনে রাখতে হবে, ঘন কালো রাতের পরই একটি উজ্জ্বল সকাল আসে। তাই থেমে না থেকে মনোবল শক্ত করে লক্ষ্যকে কেন্দ্র করে পথ চলতে হবে, তবেই পাওয়া যাবে সফলতা। 
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ