খুলনা | বুধবার | ০৩ মার্চ ২০২১ | ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭ |

গৃহহীনরা পাক মাথা গোঁজার ঠাঁই

২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ ০০:০০:০০

গৃহহীনরা পাক মাথা গোঁজার ঠাঁই

মাথা গোঁজার মতো ছোট্ট একটি ঘর সব মানুষেরই প্রয়োজন। বিপ্রতীপ বাস্তবতা হচ্ছে, অনেক মানুষেরই ঘর নেই, নেই জীবন ধারণের মতো ন্যূনতম সুযোগও। যে কারণে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে দেশজুড়ে। গৃহহীন মানুষ ছড়িয়ে আছে এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত পর্যন্ত। এর মধ্যেই দেখা মিলেছে এক সুসংবাদের। মুজিববর্ষে ভূমিহীন এবং গৃহহীন মানুষদের ঘর উপহার দেওয়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করছে সরকার। এ মহাপরিকল্পনার ধারাবাহিকতায় আগামী জুলাইয়ের মধ্যে আরও ১ লাখ দরিদ্র পরিবার পাবে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ঘর। এপ্রিলে ৫০ হাজার এবং জুনে আরও ৫০ হাজার পরিবারকে নতুন ঘর দেওয়ার লক্ষে কাজ করছে সরকার। চলছে প্রয়োজনীয় তথ্য যাচাই-বাছাই ও আনুষঙ্গিক কাজ।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে প্রথম ধাপে সারা দেশে প্রায় ৭০ হাজার ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ঘর উপহার দেন। দ্বিতীয় ধাপের ঘর নির্মাণের কাজ ৭ এপ্রিলের মধ্যে শেষ করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে দেশের মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বিশাল এ কর্মযজ্ঞের সার্বিক কর্মকান্ড এগিয়ে নিতে বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সমন্বয় সভা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়া। সভায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে প্রত্যেক বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক ও মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়া।
সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন, আরও ৫০ হাজার ঘরের জন্য মাঠপর্যায়ে ১ হাজার কোটি টাকা ছাড় করা হচ্ছে। এপ্রিল মাসে আরও ৫০ হাজার ঘর উদ্বোধন করব এবং আবার হয়তো জুলাই মাসে আরও ৫০ হাজার উদ্বোধন করতে পারব। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের পরিচালক মাহবুব হোসেন বলেন, এবার আমরা যে ঘর করব, তার ডিজাইনে ছোটখাটো পরিবর্তন এসেছে। ঘর নির্মাণের বাজেটের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী মনে করেছেন, বাজেটটা আরেকটু বাড়িয়ে দেওয়া দরকার। সেজন্য ঘরপ্রতি ২০ হাজার টাকা বাজেট বাড়ানো হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে প্রতিটি ঘরের জন্য পরিবহন খরচসহ ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা ধরা হয়েছিল। এবার তা বাড়িয়ে ১ লাখ ৯৫ হাজার টাকা থেকে ১ লাখ ৯৭ হাজার টাকা করা হয়েছে।
গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশে বলেন, ‘এলাকায় দেখবেন, কোনো লোক গৃহহীন আছে কিনা। আপনারা সঙ্গে সঙ্গে পদক্ষেপ নেবেন, আমরা ঘর করে দেব। একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না, সেটাই আমাদের লক্ষ্য। জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ আমরা গড়ে তুলব, ইনশাআল­াহ। ২০২০ সালে মুজিববর্ষ থেকে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ২০২১ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত আমরা সময় নিয়েছি। এই সময়ের মধ্যে আমরা চাই, বাংলাদেশের প্রতিটি গৃহহীন ভূমিহীন মানুষ ঘর পাবে, ঠিকানা পাবে। বাংলাদেশে শতভাগ বিদ্যুতায়ন হবে।’ প্রধানমন্ত্রীর এ উদ্যোগকে আমরা স্বাগত জানাই। বঙ্গবন্ধু যে স্বনির্ভর বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন তারই সফল বাস্তবায়ন হতে পারে এসব প্রকল্পের পর্যায়ক্রমিক ধাপে।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ



প্রতিকারহীন সড়ক দুর্ঘটনা

প্রতিকারহীন সড়ক দুর্ঘটনা

০১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০



সবার আগে নিরাপত্তা

সবার আগে নিরাপত্তা

২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ ০০:০০








ব্রেকিং নিউজ



অগ্নিঝরা মার্চ

অগ্নিঝরা মার্চ

০৩ মার্চ, ২০২১ ০০:২৮