খুলনা | শনিবার | ১৭ এপ্রিল ২০২১ | ৪ বৈশাখ ১৪২৮ |

Shomoyer Khobor

ঢাকা ও চট্টগ্রামে নগরপিতা নির্বাচিত করেছি, যার নজির বিরল

স্থানীয় নির্বাচনে অনিয়মের একটা মডেল তৈরি হয়েছে : মাহবুব তালুকদার

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ০৩ মার্চ, ২০২১ ০০:০৪:০০

নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছেন, ‘স্থানীয় নির্বাচনে হানাহানি, মারামারি, কেন্দ্র দখল, ইভিএম ভাঙচুর ইত্যাদি মিলে এখন অনিয়মের একটা মডেল  তৈরি হয়েছে।’ সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন না হওয়ার নৈরাশ্য থেকে নৈরাজ্য সৃষ্টি হওয়ায় আশঙ্কা রয়েছে বলেও তিনি মনে করেন। গতকাল মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশন ভবনে জাতীয় ভোটার দিবস উপলক্ষে আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।
মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘নির্বাচন হচ্ছে গণতন্ত্রে উত্তরণের একমাত্র পথ। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ, অংশীদারমূলক ও গ্রহণযোগ্য না হলে ক্ষমতার হস্তান্তর স্বাভাবিক হতে পারে না। নির্বাচন সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য না হলে দেশের স্থিতিশীলতা, সামাজিক অস্থিরতা ও ব্যক্তির নৈরাশ্য বৃদ্ধি পায়। এর ফলে নৈরাশ্য থেকে নৈরাজ্য সৃষ্টি হওয়ায় আশঙ্কা রয়েছে। নৈরাজ্য প্রবণতা কোনও গণতান্ত্রিক দেশের জন্য মোটেও কাম্য নয়। দেশের মানুষের গণতান্ত্রিক আশা-আকাক্সক্ষা রূপদানের জন্য নির্বাচন কমিশনের ওপর সাংবিধানিক দায়িত্ব অর্পিত হয়েছে। এই দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করতে না পারলে আমরা গণতন্ত্র অস্তাচলে পাঠানোর দায়ে অভিযুক্ত হবো।’
অনুষ্ঠানে লিখিত বক্তব্যে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য না হলে দেশে স্থিতিশীলতা, সামাজিক অস্থিরতা ও ব্যক্তির নৈরাশ্য বৃদ্ধি পায়। নৈরাশ্য থেকে নৈরাজ্য সৃষ্টি হওয়ায় আশংকা থাকে। নৈরাজ্যপ্রবণতা কোনো গণতান্ত্রিক দেশের জন্য মোটেই কাম্য নয়। “নির্বাচন কমিশনের ওপর সাংবিধানিক দায়িত্ব অর্পিত হয়েছে। এই দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করতে না পারলে আমরা গণতন্ত্র অস্তাচলে পাঠানোর দায়ে অভিযুক্ত হব।”
সা¤প্রতিক সিটি নির্বাচনগুলোর ভোটের হার তুলে ধরে এ নির্বাচন কমিশনার বলেন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে ভোটের হার ছিল যথাক্রমে ২৫.৩৪ শতাংশ ও ২৯.০৭ শতাংশ। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোট পড়েছে সাড়ে ২২ শতাংশ। “এত কম ভোটে আমরা রাজধানী ঢাকায় দুজন এবং চট্টগ্রামে একজন নগরপিতাকে নির্বাচিত করেছি, যার নজির নিতান্ত বিরল।”
ইভিএম নিয়ে নিজের অবস্থান তুলে ধরে মাহবুব তালুকদার বলেন, “এক সময় আমি বিভিন্ন কারণে ইভিএম বা ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন ব্যবহারের বিরোধী ছিলাম। বিশেষ ভাবে কোনো প্রস্তুতি ব্যতিরেকে ও সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক দলগুলোর সম্মতি ছাড়া জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারে আপত্তি করেছি। বর্তমানে প্রধানত দু’টি কারণে আমি ইভিএমে ভোট গ্রহণে আগ্রহী।”
মত বদলের সেই দুই কারণ তুলে ধরে তিনি বলেন, ইভিএমে ভোট হলে নির্বাচনের আগের রাতে ব্যালট পেপারে সিল মেরে বাক্স ভরা সম্ভব হয় না। বিভিন্ন কেন্দ্রে শতভাগ ভোট পড়ার বিড়ম্বনা থেকে ‘রক্ষা পাওয়া’ যায়।  তবে ইভিএমে ভোট হলে ভোটার উপস্থিতি ও ভোটের পরিসংখ্যান আশঙ্কাজনকভাবে কমে যায়। “ইভিএম ব্যবহার করে আমরা সর্বত্র ভোট জালিয়াতি, কারচুপি, কেন্দ্র দখল ইত্যাদি অভিযোগ থেকে রেহাই পেয়েছি, এমন দাবি আমি অন্তত করি না। কিন্তু ইভিএম ব্যবহারের বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো নিরসন করার উদ্যোগ গ্রহণ অপরিহার্য। নির্বাচন বিষয়ক অনিয়ম ও অভিযোগ যথাযথভাবে আমলে না নেওয়ায় আমরা প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচনের দায়ে অভিযুক্ত হতে পারি।”
তিনি বলেন, ‘বর্তমানে আমরা দেশব্যাপী পৌরসভা নির্বাচনের প্রায় শেষ পর্যায়ে আছি। আগামী এপ্রিল মাস থেকে ধাপে ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। স্থানীয় নির্বাচনগুলোর গতি-প্রকৃতি দেখে আমার ধারণা হচ্ছে, বহুদলীয় গণতন্ত্রের জন্য নির্বাচনের যে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড ও ভারসাম্য রক্ষিত হওয়ার প্রয়োজন ছিল, তা হচ্ছে না। এককেন্দ্রীয় নির্বাচনে স্থানীয় নির্বাচনের তেমন গুরুত্ব নেই, নির্বাচনে মনোনয়ন লাভই এখন গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। স্থানীয় নির্বাচনেও হানাহানি, মারামারি, কেন্দ্র দখল, ইভিএম ভাঙচুর ইত্যাদি মিলে এখন একটা অনিয়মের মডেল তৈরি হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে সংঘটিত এসব ঘটনাকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলা হলেও অসংখ্য বিচ্ছিন্ন ঘটনা বা দুর্ঘটনা মিলে এক ধরনের অবিছিন্নতা তৈরি হয়, যা নির্বাচনের অনুষঙ্গ হিসেবে রূপ লাভ করে।’
তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে সবচেয়ে চমক সৃষ্টিকারী পৌরসভা নির্বাচন হয়েছে চট্টগ্রামের রাউজানে। এখানে মেয়র ও ১২ জন কাউন্সিলর বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ইতোপূর্বে উপজেলা নির্বাচনেও ঠিক এভাবে রাউজানে সবাই বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় নির্বাচিত হয়েছিলেন। সারাদেশে যদি এই মডেলে সবাই বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় জনপ্রতিনিধি হতে পারেন, তাহলে নির্বাচনে অনেক আর্থিক সাশ্রয় হয় এবং সহিংসতা ও হানাহানি থেকে রেহাই পাওয়া যায়। এতে নির্বাচন কমিশনের দায়-দায়িত্ব তেমন থাকবে না। এ অবস্থায় নির্বাচন কমিশনের আর প্রয়োজন হবে কিনা, সেটা এক বড় প্রশ্ন।’
নির্বাচন ব্যবস্থা সংস্কারের ওপর গুরুত্ব দিয়ে তিনি বলেন, ‘নির্বাচন প্রক্রিয়ার সংস্কার না হলে সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ, গ্রহণযোগ্য নির্বাচন সম্ভব নয়। নির্বাচন প্রক্রিয়ায় সংস্কার না হলে নির্বাচনি ব্যবস্থাপনা প্রায় অকার্যকর হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করে সংশ্লিষ্ট সব মহলের ইতিবাচক উদ্যোগ গ্রহণ প্রয়োজন। সংস্কার না হলে এখন যে ধরনের নির্বাচন হচ্ছে, তার মান আরও নিম্নগামী হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।’


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ

ছুরিকাঘাতে ফুফাতো ভাইকে হত্যা 

ছুরিকাঘাতে ফুফাতো ভাইকে হত্যা 

১৭ এপ্রিল, ২০২১ ১৭:০৭



করোনামুক্ত হলেন এমপি চুমকি

করোনামুক্ত হলেন এমপি চুমকি

১৭ এপ্রিল, ২০২১ ১৬:১৫










ব্রেকিং নিউজ




ছুরিকাঘাতে ফুফাতো ভাইকে হত্যা 

ছুরিকাঘাতে ফুফাতো ভাইকে হত্যা 

১৭ এপ্রিল, ২০২১ ১৭:০৭






করোনামুক্ত হলেন এমপি চুমকি

করোনামুক্ত হলেন এমপি চুমকি

১৭ এপ্রিল, ২০২১ ১৬:১৫