খুলনা | শনিবার | ১৭ এপ্রিল ২০২১ | ৪ বৈশাখ ১৪২৮ |

Shomoyer Khobor

রাজশাহীতে বিএনপি’র মহাসমাবেশে বক্তারা

পদত্যাগ করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে

খবর প্রতিবেদন  | প্রকাশিত ০৩ মার্চ, ২০২১ ০০:১১:০০


চলতি বছরেই বর্তমান সরকারকে পদত্যাগ করে নির্দলীয় তত্ত¡াবধায়ক সরকারে অধীনে নির্বাচন দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন বিএনপি নেতারা। গতকাল মঙ্গলবার রাজশাহীর নাইস কমিউনিটি সেন্টারের সামনে আয়োজিত সমাবেশ এ দাবি জানান তারা। নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে এ সমাবেশের আয়োজন করে রাজশাহী মহানগর ও জেলা বিএনপি। সমাবেশকে কেন্দ্র করে নগরীর প্রতিটি মোড়ে মোড়ে বিপুল সংখ্যক আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়। এদিন সকাল থেকে নগরীর আমচত্বর, কাঠাখালী, সাহেব বাজার, ফায়ার সার্ভিস মোড়, ভোজ পাড়া মোড়, সদর হাসপাতাল মোড়, সিএমবি মোড়সহ বিভিন্ন এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে তল­াশি চালাতে দেখা গেছে। তবে শত বাধা বিপত্তি অতিক্রম করে মিছিল নিয়ে সমাবেশ স্থলে আসেন নেতা-কর্মীরা। 
মঙ্গলবার বিকেল তিনটায় সমাবেশ শুরু হলেও দুপুরের পর রাজশাহী মহানগরীর মাদ্রাসা ময়দান সংলগ্ন নাইস কমিউনিটি সেন্টার এলাকায় লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়। দেশব্যাপী নির্দলীয় নিরপেক্ষ নির্বাচন, ভোট চুরি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে অনুষ্ঠিত এই সমাবেশের আয়োজন করে দলটি।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, আজকে সমাবেশে আসার সময় বেশ কয়েকবার আমার গাড়ি বহরে বাধা দিয়েছে পুলিশ। এ জন্য কি আমরা যুদ্ধ করেছিলাম? পুলিশ বাহিনীকে বলতে চাই, আপনারা যা করছেন সেটা আপনাদের নামের সঙ্গে মানায় না। আমি আপনাদের বলি, আপনারা আমাদের ভাই। তাই আপনারা আপনাদের অর্পিত দায়িত্ব পালন করুন।
তিনি বলেন, বাঙালি হচ্ছে বীরের জাতি। বাঙালি কখনো কারো কাছে মাথা নত করবে না। আমরা এই স্বৈরাচার সরকারের কাছে মাথা নত করবো। এই অবৈধ সরকারকে হটাতে হলে রাজপথের আন্দোলনের বিকল্প নেই। তাই সকলকে প্রস্তুত হতে হবে। সবাই আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত হোন।
টুকু আরও বলেন, ‘বৃদ্ধ বয়সে প্রস্তুত আছি। জীবনের শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে হলেও গণতন্ত্র উদ্ধারের আন্দোলনে আমি আছি। সবাই প্রস্তুতি নিন।’
সমাবেশে টুকু আরও বলেন, ‘একাত্তরের ২৫ মার্চের রাতে দেশের স্বাধীনতার জন্য যে পুলিশ সবচেয়ে বেশি ত্যাগ করেছে, স্বাধীন দেশে সেই পুলিশ একটি দলের কর্মী বাহিনীতে পরিণত হয়েছে। দেশ এখন দুর্নীতিতে ভরে গেছে। ফরিদপুরের ছাত্রলীগ সভাপতিই দুই হাজার কোটি টাকা পাচার করেছে। তাহলে রাঘব-বোয়ালরা কত টাকা পাচার করেছে, তার হিসাব দেশের জনগণ নেবে।’ ‘পুলিশ এখন সরকারি দলের কর্মী বাহিনীতে পরিণত হয়েছে। স্বাধীনতার আগে থেকেই দেশের নানা সমস্যার সমাধান হয়েছে রাজপথে। এবারও রাজপথেই ফয়সালা হবে’ বলেন টুকু।
সরকারের উদ্দেশ্যে বিএনপি’র এই সিনিয়র নেতা বলেন, আমরা এই অবৈধ সরকারকে বলতে চাই, সময় থাকতে পদত্যাগ করুন। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিন। নয়তো জনগণ আন্দোলনের মাধ্যমে আপনাদের ক্ষমতা থেকে নামাতে বাধ্য হবে।
খুলনা সিটি কর্পোরেশনে বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, ভোট ডাকাতির চিত্র তুলে ধরতে ৬ সিটিতে সমাবেশের করছে জনতার মেয়ররা। সমাবেশের অনুমতি দিলেও পথে পথে বাথা বাধা দিচ্ছে পুলিশ। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে পরিবহন হোটেল মোটেলও। বিএনপি কারচুপির নির্বাচনে আর যাবেন না বলে যে ঘোষণা দেয়া হয়েছে তা সময়উপযেগী সিদ্ধান্ত হয়েছে। আর শেখ হাসিনা সরকারের পতনও হবে সে বিষয়টি মাথায় রেখে পুলিশকে কাজ করার আহবান জানান তিনি।
ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের পরাজিত মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন বলেন, ‘স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে আজ একটা সুন্দর পরিবেশ থাকার কথা ছিল। তার বদলে আমাদের আন্দোলনের বার্তা নিয়ে রাজশাহী আসতে হয়েছে। আমাদের আন্দোলন শুরু হয়েছে।’
ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে বিএনপি’র পরাজিত মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল বলেন, ‘আজ জাতীয় ভোটার দিবস। অথচ মানুষ ভোটই দিতে পারে না। আমরা এমন অবস্থা চাই না। সে কারণে আন্দোলনের আর কোনো বিকল্প নেই।’
রাজশাহী নগর বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের সভাপতিত্বে ও নগর সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলনের পরিচালনায় সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অবঃ) আব্দুল লতিফ, মিজানুর রহমান মিনু ও হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম-মহাসচিব ও সংসদ সদস্য হারুন অর রশিদ, মজিবর রহমান সারোয়ার, রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু। এছাড়া বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য শামসুল হক প্রামাণিক, চট্টগ্রাম নগর বিএনপি’র সভাপতি ও মেয়র প্রার্থী ডাঃ শাহাদাত হোসেন, রাজশাহী জেলা বিএনপি’র সাবেক সভাপতি নাদিম মোস্তফা, দেশের ছয়টি সিটি কর্পোরেশনে অংশ নেওয়া বিএনপি’র মেয়র প্রার্থীরা ছাড়াও কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য দেন। সমাবেশে বিভাগের আট জেলার সভাপতি ও সম্পাদকসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মী অংশ নেন।
বিএনপি’র এই সমাবেশকে ঘিরে গত সোমবার সকাল থেকে রাজশাহীর সঙ্গে দেশের সব রুটের বাস চলাচল বন্ধ থাকলেও দলের নেতা-কর্মী ও সমর্থকেরা বিভিন্ন যানবাহনে সমাবেশে আসে। দুপুরের পর থেকে খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে তারা সমাবেশে যোগ দেন। পথে পথে পুলিশ সদস্যরা সন্দেহজনক ব্যক্তিদের শরীর তল­াশি করে। সমাবেশকে ঘিরে রাজশাহীতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। অত্যন্ত সতর্ক অবস্থায় ছিল আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। সমাবেশস্থলে প্রস্তুত রাখা হয়েছিল জলকামান, এপিসি যান এবং ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের একটি করে গাড়ি।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ

ছুরিকাঘাতে ফুফাতো ভাইকে হত্যা 

ছুরিকাঘাতে ফুফাতো ভাইকে হত্যা 

১৭ এপ্রিল, ২০২১ ১৭:০৭



করোনামুক্ত হলেন এমপি চুমকি

করোনামুক্ত হলেন এমপি চুমকি

১৭ এপ্রিল, ২০২১ ১৬:১৫










ব্রেকিং নিউজ




ছুরিকাঘাতে ফুফাতো ভাইকে হত্যা 

ছুরিকাঘাতে ফুফাতো ভাইকে হত্যা 

১৭ এপ্রিল, ২০২১ ১৭:০৭






করোনামুক্ত হলেন এমপি চুমকি

করোনামুক্ত হলেন এমপি চুমকি

১৭ এপ্রিল, ২০২১ ১৬:১৫