খুলনা | শনিবার | ১৭ এপ্রিল ২০২১ | ৪ বৈশাখ ১৪২৮ |

Shomoyer Khobor

এগিয়ে যাচ্ছে খুলনা পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্পের কার্যক্রম : ডিসেম্বরে পৌঁছাবে উপকরণ

এস এম আমিনুল ইসলাম | প্রকাশিত ০৮ এপ্রিল, ২০২১ ০০:৪২:০০

এগিয়ে যাচ্ছে খুলনা পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্পের কার্যক্রম : ডিসেম্বরে পৌঁছাবে উপকরণ

করোনাকালীন সময়ের মধ্যেও বেশ জোরেসোরে এগিয়ে যাচ্ছে খুলনা ওয়াসার ‘খুলনা পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্পের কার্যক্রম। ইতোমধ্যে বেশির ভাগ প্যাকেজের টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। ফলে চলতি বছর ডিসেম্বরের মধ্যেই মাঠ পর্যায়ে পৌঁছাবে প্রকল্প বাস্তবায়নে উপকরণ সামগ্রী। তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে জনস্বাস্থ্য সুরক্ষা, পরিবেশ দূষণ প্রশমন এবং আর্থ-সামাজিক অবস্থার বিকাশ সাধনে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, খুলনা শহরে প্রায় ১৫ লাখ মানুষের বাস। কিন্তু এখন পর্যন্ত পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা গড়ে না ওঠায় শহরের প্রায় অধিকাংশ লোকই স্বাস্থ্য সুরক্ষায় নিজস্ব ব্যবস্থার ওপর নির্ভরশীল। বর্তমানে পয়ঃনিষ্কাশনে নগরবাসীর মধ্যে কিছুসংখ্যক কূপ পদ্ধতি এবং প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ সেপটিক ট্যাংক পদ্ধতি ব্যবহার করছে। মহানগরীর বাড়ির সেপটিক ট্যাংক ও কূপগুলো অধিকাংশই রাস্তার পাশে অবস্থিত এবং উন্মুক্ত পরিবেশে ড্রেনের সঙ্গে যুক্ত। ফলে এসব সেপটিক ট্যাংক ও কূপের পানি ও ময়লা উন্মুক্ত ড্রেনে গিয়ে পড়ছে। বৃষ্টিপাত হলে গৃহস্থালির বর্জ্য এবং এসব বর্জ্য একসঙ্গে মিশে রোগ-জীবাণুর প্রজননক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। এ অবস্থার প্রেক্ষাপটে ২ হাজার ৩৩৪ কোটি ১৩ লাখ টাকার ‘খুলনা পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা উন্নয়ন’ শীর্ষক একটি প্রকল্প হাতে নেয় ওয়াসা। যা ইতোমধ্যে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে অনুমোদন মিলেছে।
এ ব্যাপারে খুলনা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল­াহ পিইঞ্জ বলেন, প্রথমবারের মতো পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা গড়ে তোলা হচ্ছে খুলনা সিটি কর্পোরেশন ও বটিয়াঘাটা উপজেলায়। প্রকল্পের আওতায় প্রধান কার্যক্রমগুলো হচ্ছে  পরামর্শক সেবা গ্রহণ, দুটি ৬০ এমএলডি ও ৩০ এমএলডি স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট নির্মাণ। এছাড়া ১৭৩ কিলোমিটার স্যুয়ার নেটওয়ার্ক নির্মাণ, আটটি স্যুয়ার পাম্পিং স্টেশন নির্মাণ, ৭৭ কিলোমিটার সার্ভিস লাইন স্থাপন, ৩০ হাজার হাউস কানেকশন, একটি ওয়েট ল্যান্ড নির্মাণ, ৫২ কিলোমিটার বিদ্যমান ইউটিলিটির পুনর্বিন্যাস, স্যুয়ার ক্লিনিং ইকুইপমেন্ট ক্রয়, ল্যাবরেটরি ইকুইপমেন্ট ক্রয় এবং এক লাখ ১৫ হাজার ৭৪১ ঘনমিটার ভূমি উন্নয়ন। এ প্রকল্পে সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে ৯২৯ কোটি ৪২ লাখ টাকা এবং এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) ঋণ থেকে ১ হাজার ৪০৪ কোটি ৭১ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে।  ২০২৫ সালের জুনের মধ্যে এটি বাস্তবায়ন করবে ওয়াসা। 
তিনি বলেন, এডিবির পরামর্শক অনুযায়ী ঠিকাদার নিয়োগ করতেই ইতোমধ্যে বেশিরভাগ প্যাকেজের টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। চলতি বছর ডিসেম্বরের মধ্যেই মাঠ পর্যায়ে পৌঁছাবে প্রকল্প বাস্তবায়নে সকল উপকরণ সামগ্রী। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে জনস্বাস্থ্য সুরক্ষা, পরিবেশ দূষণ প্রশমন এবং আর্থ-সামাজিক অবস্থার বিকাশ সাধনে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে। খুলনা শহরে উন্নতমানের পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা সৃষ্টি হবে ও নাগরিকসেবা বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া একই সঙ্গে প্রকল্পের আওতায় ক্যাপাসিটি বিল্ডিং কার্যক্রমের মাধ্যমে খুলনা ওয়াসার লোকবলের পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থায় দক্ষতা বাড়ানো হবে। 
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ




ছুরিকাঘাতে ফুফাতো ভাইকে হত্যা 

ছুরিকাঘাতে ফুফাতো ভাইকে হত্যা 

১৭ এপ্রিল, ২০২১ ১৭:০৭






করোনামুক্ত হলেন এমপি চুমকি

করোনামুক্ত হলেন এমপি চুমকি

১৭ এপ্রিল, ২০২১ ১৬:১৫