খুলনা | বুধবার | ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮ ফাল্গুন ১৪৩০

বাগেরহাটে ধর্ষণ মামলা থেকে খালাস পেলেন তাতী লীগের সাধারণ সম্পাদক

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাগেরহাট |
০৬:১১ পি.এম | ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪


বাগেরহাটে অপরাধ প্রমানিত না হওয়ায় মিথ্যা মামলা থেকে বেখসুর খালাস পেয়েছেন জেলা তাতীলীগের সাধারণ সম্পাদক আইনজীবী ফকির ইফতেখারুল ইসলাম রানা। অপরাধ প্রমানিত না হওয়ায় সোমবার (০৫ ফেবুয়ারি) দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইবুনাল আদালত-১-এর বিচারক এস এম সাইফুল ইসলাম এই রায় ঘোষনা করেন।

জানাযায়, ২০২২ সালের ০১ এপ্রিল আইনজীবী ফকির ইফতেখারুল ইসলাম রানার নামে ধর্ষণ মামলা করেন রুমা বেগম নামের এক নারী। পরের দিন ২ এপ্রিল বিকেলে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করে পুলিশ। তবে প্রথম থেকেই মামলাটিকে পরিকল্পিত ও মিথ্যা দাবি করে আসছিলেন এই আইনজীবী।

বেখসুর খালাস পাওয়া আইনজীবী ফকির ইফতেখারুল ইসলাম রানা বলেন, পুলিশ হেফাজতে আসামী নির্যাতনের অভিযোগ এনে বাগেরহাট মডেল থানার তৎকালীন সদস্য এস আই শরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে শহিদুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি মামলা করেন। ওই মামলার আইনজীবী ছিলাম আমি। মামলাটি প্রত্যাহারের জন্য এস আই শরিফুল ইসলাম আমাকে নানা ভাবে চাপ দিচ্ছিলেন। রাজি না হওয়ায় তিনি আমাকে অন্যায়ভাবে আটক করেন। তাতেও আমি রাজি না হওয়ায়, রুমা বেগম নামের এক নারীকে বাদী করে আমার নামে ধর্ষণ মামলা দেয়। পরে ওই ধর্ষণ মামলায় আামাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়।

ফকির ইফতেখারুল ইসলাম রানা আরও বলেন, আমাকে হয়রানি করার উদ্দেশ্যেই এসআই শরিফুল ইসলাম এই মামলাটি করিয়েছেন। অপরাধ প্রমানিত না হওয়ায় আদালত আমাকে বেখসুর খালাস দিয়েছেন। আমি ন্যায় বিচার পেয়েছি, আসলে সত্যের জয় সব সময় হয়। মিথ্যা মামলার বাদী ও ষড়যন্ত্রক্রাীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান তিনি।

এদিকে মিথ্যা মামলায় বেখসুর খালাস পাওয়ায় জেলা তাতীলীগের সাধারণ সম্পাদক আইনজীবী ফকির ইফতেখারুল ইসলাম রানাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তাতী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী, আইনজীবী ও সুভান্যুধায়ীরা।

বাগেরহাট জেলা তাতী লীগের সভাপতি তালুকদার আব্দুল বাকি বলেন, তাতী লীগ নেতা আইনজীবী ফকির ইফতেখারুল ইসলাম রানাকে মিথ্যা মামলায় ফাসানোর ঘটনায় আমরা তীব্র নিন্দা জানাই। তাকে দলের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানাই। যারা তাকে ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় ফাসিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন এই রাজনীতিবীদ।
 

প্রিন্ট

আরও সংবাদ