খুলনা | বৃহস্পতিবার | ২৫ এপ্রিল ২০২৪ | ১১ বৈশাখ ১৪৩১

চিতলমারীতে রাতের আধারে জায়গা দখলের চেষ্টা, পুলিশের হস্তক্ষেপে রক্ষা

চিতলমারী প্রতিনিধি |
০৪:৫৪ পি.এম | ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪


বাগেরহাটের চিতলমারীতে সুদের টাকার লেনদেনকে কেন্দ্র করে একটি নীরিহ পরিবারে জায়গা দখল চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় এক প্রভাবশালী ভাড়াটিয়া লোকজন নিয়ে গৃহ নির্মান করে দখলের এই চেষ্টা চালান। খবর পেয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সংগীয় ফোর্স নিয়ে ওই পরিবারের জায়গা দখলমুক্ত রেখেছেন। সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারী) রাত ১১ দিকে চরবানিয়ারী ইউনিয়নের খড়মখালী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পরস্পরবিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে।

ভূক্তভোগী মলয় হালদার বলেন, ‘প্রায় ১৪ বছর আগে প্রতিবেশী মৃত আফিল উদ্দিন শেখের ছেলে ইউনুস শেখের কাছ থেকে মাসিক ১১ হাজার টাকা লাভ দেওয়ার চুক্তিতে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা নিয়েছিলাম। চার বছর রীতিমত সুদের লাভ ৫ লাখ ২৮ টাকা পরিশোধ করেছি। এরপর টাকা দিতে না পারায় সে আমার কাছ থেকে জমি বন্ধক চুক্তির কথা বলে সাদা স্ট্যাম্পে জোরপূর্বক স্বাক্ষর করিয়ে নেয়। এখন সোমবার রাতের আধারে প্রভাবশালী ইউনুস শেখ ভাড়াটিয়া ২০ থেকে ৩০ জন সন্ত্রাসী নিয়ে জায়গা দখল করে টিন ও গাছ খুঁটি দিয়ে ঘর তুলতে যায়। পরে ওসি সাহেব এসে আমার জায়গা রক্ষা করেন।’

মলয় হালদারের স্ত্রী কাকলী হালদার ও কলেজ পড়–য়া মেয়ে সুমি হালদার বলেন, ‘আমরা নীরিহ মানুষ। পুলিশ আমাদের জায়গা দখলমুক্ত রেখেছে। এ জন্য পুলিশকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই। ওরা এলাকার একটি দাঙ্গাবাজ বাহিনী নিয়ে মহড়া দিচ্ছে। আমরা গোটা পরিবার ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছি।’

সুদে লেনদেনের কথা অস্বীকার করে ইউনুস শেখ বলেন, ‘আমার বোন মমতাজ বেগমের কাছ থেকে জমি বিক্রির কথা বলে মলয় হালদার টাকা নিয়েছিল। সেই টাকা না দেওয়ায় পোলাপানরা (যুবকেরা) জায়গা দখল করতে যায়। পুলিশ বাধা দিলে তারা ঘর তোলে নেই।’

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রæয়ারী) দুপুরে চিতলমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ ইকরাম হোসেন বলেন, ‘খবর পেয়ে আমি তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে টিন ও গাছ খুঁটি জব্দ করেছি। পুলিশের টের পেয়ে দখল চেষ্টাকারীরা পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।’

প্রিন্ট

আরও সংবাদ