খুলনা | বৃহস্পতিবার | ২৫ এপ্রিল ২০২৪ | ১১ বৈশাখ ১৪৩১

সুনামগঞ্জে ঘোড়ার লাথি দেওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, নিহত ২

খবর প্রতিবেদন |
০৪:৫৬ পি.এম | ০২ এপ্রিল ২০২৪


সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ উপজেলায় প্রতিবেশীর পালিত ঘোড়ার লাথি দেওয়াকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষ আব্দুল আউয়াল ও নুর মোহাম্মদ নামে দুইজন নিহত হয়েছেন।

এতে আহত হয়েছে আরও অন্তত ২০ জন। এই ঘটনায় উভয় পক্ষের ৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার রাত ১১টার দিকে উপজেলার শিমুলবাকঁ ইউনিয়নের থলেরবন্দ গ্রামে এই সংঘর্ষ বাঁধে।

শান্তিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী মুক্তাদির হোসেন এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ ও স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার শিমুলবাক ইউনিয়নের থলেরবন্দ গ্রামে আশিক মিয়ার বাড়ির সামনে প্রতিবেশী শের আলী নিজের পালিত একটি ঘোড়া বেঁধে রাখেন। পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় ঘোড়ার লাথিতে আশিক মিয়ার ছেলে ফরিদ আঘাত প্রাপ্ত হয়। এতে আশিক মিয়ার ভাই সাহার আলী, শের আলীকে ওই জায়গায় ঘোড়া বেঁধে রাখার কারণ জিজ্ঞাসা করলে শের আলী সাহার আলীকে মারধর করেন। এ ঘটনার জের ধরে উভয় পক্ষ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রসহ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে এবং এক পক্ষ আরেক পক্ষের বাড়িঘর ভাংচুর করে।

সংঘর্ষে আশিক মিয়ার পক্ষের থলেরবন্দ গ্রামের মৃত রহিম আলীর ছেলে নুর মোহাম্মদ (২২) ও শের আলীর পক্ষের একই গ্রামের মৃত নৈমুল্লাহর ছেলে আব্দুল আওয়ালসহ (৫৫) উভয় পক্ষের প্রায় ২০ জন আহত হন। গুরুত্বর আহতদের উদ্ধার করে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার আহত নুর মোহাম্মদকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতেই সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠালে রাত ২টায় পথেই তার মৃত্যু হয়। অন্যদিকে মঙ্গলবার সকালে আহত আব্দুল আওয়াল সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন।

শান্তিগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী মুক্তাদির হোসেন এই ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ‘খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয় এবং তাৎক্ষণিক অভিযান পরিচালনা করে আশিক মিয়ার পক্ষের ২জন এবং শের আলীর পক্ষের ৪ জনকে আটক করে। ’

ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সার্বিক পরিস্থিতি নজরদারীতে আছে। বর্তমানে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে।’

প্রিন্ট

আরও সংবাদ