খুলনা | রবিবার | ১৪ এপ্রিল ২০২৪ | ৩০ চৈত্র ১৪৩০

নিজকে নাজাতের উপযুক্ত বানাই

মুফতি রবিউল ইসলাম রাফে |
০১:৩৪ এ.এম | ০৩ এপ্রিল ২০২৪


আজ ২৩ রমজান। চলছে অশেষ পুণ্যময় বৈশিষ্ট্যের আঁধার মহিমান্বিত মাহে রমজানের নাজাত বা মুক্তির দশক। এই শেষ দশকে জাহান্নাম থেকে বিপুল সংখ্যক কয়েদীকে নাজাত দেয়া হয়। এক হাদিসে হুজুর (সাঃ) বলেন, রমজানের প্রতি দিবা-রাতে জাহান্নামের কয়েদীদেরকে মুক্তি দেয়া হয় এবং প্রতি দিবা-রাতে মুসলমানের একটি দোয়া অবশ্যই কবুল করা হয় (তারগীব)। আর এক হাদিসের অংশ বিশেষে প্রিয় নবী কারিম (সাঃ) এরশাদ করেন, আল­াহ তায়ালা রমজান মাসে ইফতারের সময় এমন দশ লাখ লোককে জাহান্নাম হতে মুক্তি দান করেন যাদের ওপর জাহান্নাম ওয়াজিব হয়ে গিয়েছিল। এরপর যখন রমজানের দেশ দিন আসে তখন পহেলা রমজান থেকে শেষ পর্যন্ত যত লোককে জাহান্নাম হতে মুক্তি দেয়া হয়েছে তার সমসংখ্যক লোককে একদিনে জাহান্নাম হতে মুক্তি দেয়া হয় (তারগীব: বায়হাকি)। 
এ কারণে আমাদেরও বেশী বেশী আল­াহর কাছে নাজাতের জন্য দোয়া করা উচিত। কারণ জাহান্নাম থেকে মুক্তি পাওয়া ও জান্নাত হাসিল করাই মানুষের আসল উদ্দেশ্য ও কামিয়াবি। আল­াহপাক পবিত্র কুরআনে এরশাদ করেছেন: যে জাহান্নাম থেকে মুক্তি পেল ও জান্নাতে প্রবেশ করলো সেই প্রকৃত সফলতা লাভ করলো (আর কুরআন)। হাদিসে আরও আছে, রমজানের প্রতি রাতে একজন ঘোষণাকারীকে আল­াহপাক হুকুম করেন যেন সে তিনবার এই ঘোষণা দেয় যে, আছে কোন প্রার্থনাকারী? যাকে আমি দান করব। আছে কোন তওবাকারী? তার তওবা আমি কবুল করব। আছে কোন ক্ষমা প্রার্থী? যাকে আমি ক্ষমা করব (তারগীব: বায়হাকি)। নাজাতের দশকের এই  শেষ দিন গুলোতে আমাদের ইবাদতকে আরও বাড়িয়ে  দেওয়া দরকার। কারণ হুজুর (সাঃ) স্বয়ং নিজে রমজানের শেষের দিকে ইবাদত বন্দেগী বাড়িয়ে দিতেন, নিজে রাত জাগতেন এবং পরিবারের লোকজনদেরকেও রাত জেগে ইবাদত করার জোর তাগিদ দিতেন (মুসলিম)। তাছাড়া অধিকাংশ হাদিসের রেওয়ায়েত অনুসারে মহিমান্বিত কদরের রাত শেষ দশকের যেকোন রাতে হতে পারে।  
লেখক : আরবী সাহিত্যিক ও মুহাদ্দিস, জামি’য়া ইসলামিয়া মারকাযুল উলূম, বাগমারা, খুলনা।

প্রিন্ট