খুলনা | মঙ্গলবার | ২৩ জুলাই ২০২৪ | ৮ শ্রাবণ ১৪৩১

স্কটিশদের স্বপ্ন ভেঙে অস্ট্রেলিয়ার জয়ে সুপার এইটে ইংল্যান্ড

ক্রীড়া প্রতিবেদক |
০২:৪০ পি.এম | ১৬ জুন ২০২৪


সুপার এইটে খেলার দারুণ সম্ভাবনা তৈরি করেছিল স্কটল্যান্ড। সমীকরণটা ছিল খুবই সোজা। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জিতলেই সুপার এইটে স্কটিশরা, হারলে অজিদের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ইংল্যান্ড সেই জায়গাটি পূরণ করবে। এমন ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার সামনে ৫ উইকেটে ১৮০ রান স্কোর বোর্ডে জমা করেছিল স্কটিশরা। দ্রুত অজিদের ৩ উইকেট তুলে নিয়ে জয়ের সম্ভাবনাও তৈরি করেছিলস তারা। কিন্তু মার্কাস স্টয়নিসের বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে স্কটিশদের স্বপ্নভেঙে  ৫ উইকেটে জয় পেয়েছে অজিরা। আর তাতেই ইংল্যান্ডকে সুপার এইটে তুলতে বড় ভূমিকাটাই রাখল মিচেল মার্শরা।

১৮১ রানের পুঁজি রক্ষা করতে নেমে শুরুটা দুর্দান্ত করে স্কটল্যান্ড। দ্বিতীয় ওভারেই আউট হয়ে যান ডেভিড ওয়ার্নার। তখন অজিদের স্কোরবোর্ডে মাত্র দুই রান। এরপর ১০ ওভারে অজিদের স্কোর দাঁড়ায় তিন উইকেটে ৭৪ রান। সেখান থেকে গ্লেন ম্যাক্সওয়েল আউট হওয়ার পরে তখন অজিদের ইনিংস টানতে থাকেন ট্র্যাভিস হেড এবং মার্ক স্টইনিস। তাদের জুটিতেই ম্যাচে ফেরে অস্ট্রেলিয়া।

চতুর্থ উইকেটে ৪৪ বলে ৮০ রান যোগ করেন হেড এবং স্টইনিস। ৪৯ বলে ৬৮ রান করেন হেড। ২৯ বলে ৫৯ রান করেন স্টইনিস। শেষ পর্যন্ত তাড়ায় ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেন। ৮.২ ওভারে তিন উইকেটে ৬০ রান থেকে ১৫.৩ ওভারে তিন উইকেটে ১৪০ রানে পৌঁছে দেন। এরপর হেড আউট হয়ে গেলেও ততক্ষণে ম্যাচটা স্কটিশদের হাত থেকে বেরিয়ে যায়। ৪৯ বলে ৬৮ রান করেন হেড।

শেষ পর্যন্ত দুই বল হাতে রেখে জয় তুলে নেয় অস্ট্রেলিয়া। ২৯ বলে ৫৯ রানের ইনিংস খেলেছেন অলরাউন্ডার স্টয়নিস। এছাড়া টিম ডেভিড খেলেন অপরাজিত ১৪ বলে ২৮ রানের ক্যামিও। স্কটল্যান্ডের হয়ে বল হাতে দুইটি করে উইকেট নেন মার্ক ওয়াট ও সাফিয়ান শরিফ নেন দুটি করে উইকেট।

আর তাতে ‘বি’ গ্রুপের শীর্ষে থেকে পরের পর্বে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া। চার ম্যাচ শেষে অজিদের সংগ্রহ আট পয়েন্ট। পাঁচ পয়েন্ট নিয়ে এই গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় দল হিসেবে পরের পর্বের টিকিট কাটল ইংল্যান্ড। সমান পয়েন্ট পেলেও রান রেটে পিছিয়ে থাকায় গ্রুপ পর্বেই শেষ হয়েছে স্কটল্যান্ডের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ যাত্রা।

এর আগে টস হারা স্কটল্যান্ডকে বড় পুঁজি এনে দিতে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন ব্র্যান্ডন ম্যাকমুলেন। ৩৪ বলে ৬০ রান করেন এই টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান। অ্যাডাম জাম্পার শিকার হওয়ার আগে দুটি চার ও ছয়টি ছয় মারেন ম্যাকমুলেন। ৩১ বলে ৪২ রানের ইনিংস খেলেন রিচি বেরিংটন। ২৩ বল খেলা জর্জ মানজির ব্যাট থেকে আসে ৩৫ রান। এছাড়া ১১ বলে ১৮ রান করেন ম্যাথু ক্রস। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে বল হাতে সর্বোচ্চ দুই উইকেট নেন গ্ল্যান ম্যাক্সওয়েল।  
 

প্রিন্ট

আরও সংবাদ