খুলনা | বৃহস্পতিবার | ২৭ জানুয়ারী ২০২২ | ১৪ মাঘ ১৪২৮

স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত : কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে

|
১২:৩৮ এ.এম | ১২ জানুয়ারী ২০২২


করোনা নিয়ে আবারও আশঙ্কাজনক পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে। অথচ এমন বাস্তবতাতেও স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত হওয়ার খবর সামনে আসছে, যা অত্যন্ত আশঙ্কাজনক বলেই প্রতীয়মান হয়। স¤প্রতি পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত খবরে জানা যাচ্ছে, মাস্ক না পরে এখনো দেশের বিভিন্ন এলাকায় চলাচল করছে মানুষ। আর স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়টিও ব্যাপকভাবে উপেক্ষিত হচ্ছে। অথচ করোনার সংক্রমণ বাড়ছে পাল­া দিয়ে। প্রতিদিন শনাক্তের হার বাড়ছে। অফিস, মার্কেট, স্কুল, গণপরিবহণ কোথাও মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি, এমন বিষয় খবরে উঠে এসেছে। এছাড়া মাস্ক পরায় অনীহার বিষয়টি সামনে আসছে। আমরা মনে করি, সামগ্রিক এ পরিস্থিতি আমলে নেওয়ার বিকল্প নেই।
বলা দরকার, করোনা চারিদিকে আবার ছড়িয়ে পড়ছে। আশঙ্কাজনক বাস্তবতা তৈরি হচ্ছে। চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্টরাও বলছেন, সবার উচিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাফেরা করা। যদি কেউ স্বাস্থ্যবিধি না মানে তাহলে করোনায় আবার আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা আছে। এছাড়া আরেকটি বিষয় লক্ষণীয় যে, অনেকে মনে করছেন, দুই ডোজ টিকা নিলে কোনো সমস্যা হবে না। করোনা হবে না। এই চিন্তা ঠিক নয়, এমনটিও আলোচনায় এসেছে। অর্থাৎ টিকা নিলেও স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। ফলে সার্বিক পরিস্থিতি আমলে নিয়ে উদ্যোগ নিতে হবে। জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে প্রচার-প্রচারণা বাড়াতে হবে।
এমন বিষয়ও জানা যাচ্ছে যে, স¤প্রতি মহামারী করোনাভাইরাসের লাগাম কোনোভাবেই টেনে ধরা যাচ্ছে না। করোনার নতুন ধরণ ওমিক্রন ও আগের ভ্যারিয়েন্ট ডেল্টার কারণে বিশ্বজুড়ে দৈনিক মৃত্যু ও সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। এছাড়া এর আগে জানা গিয়েছিল, করোনাভাইরাসের নথুন ধরণ ওমিক্রনের সম্ভাব্য সংক্রমণ ঠেকাতে বাংলাদেশে আবারো বিধি-নিষেধ জারির সিদ্ধান্ত হয়েছে। মূলত কয়েক দিন ধরে ক্রমাগত সংক্রমণ বাড়ার পরিপ্রেক্ষিতে জরুরি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়া আগামী মার্চ-এপ্রিলে আবারও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে পারে এমন আশঙ্কাও আলোচনায় আসে। সঙ্গত কারণেই আমরা বলতে চাই, করোনাভাইরাসের সংক্রমণে পুরো পৃথিবী যেমন বিপর্যস্ত হয়েছে, তেমনি দেশেও নানা ধরণের সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে। সামগ্রিক পরিস্থিতি আমলে নিয়ে সংশ্লিষ্টদের কর্তব্য হওয়া দরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ অব্যাহত রাখা।
যেভাবে করোনার সংক্রমণ বাড়ছে এবং ওমিক্রন আতঙ্ক তৈরি হচ্ছে তা আমলে নেওয়ার কোনো বিকল্প নেই। টিকাদান কর্মসূচি যেমন অব্যাহত রাখতে হবে তেমনি এর পাশাপাশি মানুষকেও সচেতন করতে কার্যকর পদক্ষেপ নিশ্চিত করতে হবে। সঙ্গত কারণেই সর্বোচ্চ সতর্কতা নিশ্চিত করা, পরস্পর পরস্পরকে সহযোগিতা, যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, সঠিক উপায়ে নাক-মুখ ঢেকে মাস্ক পরা, একই সঙ্গে টিকা কার্যক্রমকে আরও বেগবান করতে সহায়তা করাসহ যে বিষয়গুলো আলোচনায় এসেছে, তা আমলে নিয়ে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ এবং জনসচেতনতার বিষয়টি প্রাধান্য দেওয়া জরুরি।
সর্বোপরি আমরা বলতে চাই, দেশে করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। এছাড়া, যখন জানা যাচ্ছে ব্যাপকভাবে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত হচ্ছে এবং মাস্ক পরায় অনীহা পরিলক্ষিত হচ্ছে, তখন এই বিষয়টি আমলে নিতে হবে এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিশ্চিত করতে হবে। করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যু বেড়ে যেতে পারে- এমন আশঙ্কা বিবেচনায় রেখে করোনা মোকাবিলায় সর্বাত্মক উদ্যোগ অব্যাহত থাকুক এমনটি কাম্য।

প্রিন্ট

আরও সংবাদ