খুলনা | শুক্রবার | ৩০ জুলাই ২০২১ | ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮

কুরবানির পশুর হাটে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন জারুরি

|
১২:০৯ এ.এম | ১৯ জুলাই ২০২১

মুসলমানদের ত্যাগের উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা আসন্ন। আগামী ২১ জুলাই দেশব্যাপী অনুষ্ঠিত হবে পবিত্র ঈদুল আজহা। ঈদ সামনে রেখে বর্তমান ভয়াবহ করোনা পরিস্থিতিতেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে পশুর হাট বসার অনুমতি দিয়েছে সরকার। ফলে উপচেপড়া ভিড় হবে হাটে, যার মাধ্যমে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থাকবে। এ সময় স্বাস্থ্যবিধি মানার অংশ হিসেবে প্রত্যেকের মাস্ক পরে হাটে যাওয়া জরুরি। অতি ছোঁয়াচে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে মাস্ক পরার বিকল্প নেই পশুর হাটে।
পশুর হাটে মাস্ক পরা আবশ্যক হওয়ার পাশাপাশি মাস্ক পরিহিত ছিনতাইকারীদের আনাগোনাও থাকবে অনেক। করোনা পরিস্থিতি উদ্ভবের আগেও ছিনতাইকারীরা পশুর হাটে ছিনতাই করার জন্য সুযোগের অপেক্ষায় থাকত। তবে এবার পরিস্থিতি ভিন্ন হতে পারে। ছিনতাইকারীরাও মাস্ক পরে থাকবে বিধায় কে ক্রেতা আর কে বিক্রেতা কিংবা কে উৎসুক জনতার অংশ তা বোঝার উপায় থাকবে না। ছিনতাইকারীরা মোবাইল ও নগদ টাকা ছিনতাইয়ের সুযোগ খোঁজে, নানাভাবে ফাঁদ পেতে বসে থাকে।
ক্রেতা সাধারনের পাশাপাশি বিক্রেতারাও এসব ছিনতাইকারীর টার্গেটে পরিণত হন। সারা বছর কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে অর্থ সঞ্চয় করে মহান আল­াহতায়ালার নির্দেশের অংশ হিসেবে কুরবানির পশু ক্রয় করতে যাওয়া এবং সারা বছর ধরে কুরবানির পশুকে লালন-পালনের মাধ্যমে বিক্রির জন্য হাটে নিয়ে এসে ছিনতাইকারীদের কবলে পড়ে সব হারানোর মতো বহু ঘটনা ঘটছে প্রতি বছর। হাটে কুরবানির পশু ক্রয়-বিক্রয়ের ব্যস্ততার সুযোগ নেয় ছিনতাইকারী, অজ্ঞান পার্টি, মলম পার্টিসহ প্রতারকরা। পবিত্র ঈদ ও কুরবানির ত্যাগের আনন্দ মাটি করে দিতে ওঁৎ পেতে থাকে ছিনতাইকারীরা। তারা না বোঝে কারও কষ্ট, না বোঝে কারও স্বপ্ন, না শুনে ধর্মের বাণী। এ বছর মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক বিধায় ছিনতাইকারীদের সহজে শনাক্ত করা সম্ভব হবে না। কাজেই কঠোর সচেতনতাই হবে ছিনতাইকারীদের কবল থেকে রক্ষা পাওয়ার একমাত্র উপায়। করোনা ভাইরাস থেকে নিজেদের মুক্ত রাখার জন্য যেমন মাস্ক পরা জরুরি, তেমনি মাস্ক পরা ছিনতাইকারীদের কবল থেকে নিজেদের রক্ষা করার জন্য সাবধানতা অবলম্বন করাও জরুরি। মনে রাখতে হবে, হাটে প্রবেশের পর অপরিচিত লোকজনের দেওয়া কোনো কিছু খাওয়া যাবে না। হাতে মোবাইল, মানিব্যাগ ও নগদ টাকা রাখা যাবে না। পকেটে রাখলেও সতর্ক থাকতে হবে। মনে রাখতে হবে, সবাই মাস্ক পরিহিত থাকবে বিধায় একবার ছিনতাই হয়ে গেলে ছিনতাইকারীকে শনাক্ত করা কঠিন হবে। তাই কুরবানির পশুর হাটে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বনের কোনো বিকল্প নেই।

প্রিন্ট

আরও সংবাদ