খুলনা | মঙ্গলবার | ০৪ অক্টোবর ২০২২ | ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

আরও ৫৬ দিনের কাস্টডিতে পি কে হালদার

খবর প্রতিবেদন |
০৩:৩৫ পি.এম | ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২


বাংলাদেশ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করে পলাতক অবস্থায় ভারতে গ্রেফতার এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রশান্ত কুমার ওরফে পি কে হালদারকে আরও ৫৬ দিনের জেল কাস্টডিতে (জেসি) পাঠানো হয়েছে। আগামী ১৭ নভেম্বর তাকে আদালতে তোলা হবে।

বাংলা ট্রিবিউনের কলকাতা প্রতিনিধি জানান, জেল হেফাজত থেকে ৪২ দিন পর পি কে হালদারকে আজ বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) সকালে পশ্চিমবঙ্গের একটি আদালতে হাজির করা হয়। চলতি বছরের মে মাসে ভারতের কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রণালয়ের তদন্তকারী সংস্থা ইনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগনার অশোক নগরের একটি বাড়ি থেকে পি কে হালদার ও তার পাঁচ সহযোগীকে গ্রেফতার করে। বাংলাদেশ থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ ও পাচারকারী পি কে হালদার নাম পাল্টে শিব শঙ্কর হালদার নামে সেখানে বসবাস করে আসছিলেন বলে ইডি জানায়।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ৮ জানুয়ারি ২৭৫ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জন ও পাচারের অভিযোগে পি কে হালদারের বিরুদ্ধে একটি মামলা করে দুদক। সেই মামলার তদন্তে নেমে এখন পর্যন্ত প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ ও পাচারের তথ্য পেয়েছে মামলার তদন্ত সংস্থা। তবে মামলা করার আগেই পি কে হালদার পালিয়ে কানাডা চলে যান। যাওয়ার আগে এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন তিনি।

একই সময়ে তিনি চারটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস (আইএলএফএসএল), পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস, এফএএস ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড এবং বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানি (বিআইএফসি) নিজের নিয়ন্ত্রণে ধরে রাখেন।

এসব প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকের কাছ থেকে টাকা তুলে তা কাগুজে প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দেওয়ার নামে অর্থ আত্মসাৎ ও সেই অর্থ বিদেশে পাচার করেন তিনি। পি কে হালদারের বিষয়ে অনুসন্ধান করতে গিয়ে তার ৬২ জন সহযোগীর খোঁজ পায় দুদক। পি কে হালদার ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে এর আগেও একাধিক মামলা করেছে দুদক।

প্রিন্ট

আরও সংবাদ