খুলনা | মঙ্গলবার | ০৪ অক্টোবর ২০২২ | ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

শার্শার নিজামপুরে এসএসসি পরীক্ষার্থী সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার : আটক ২

বেনাপোল প্রতিনিধি |
০১:৫২ এ.এম | ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২


যশোরের শার্শার নিজামপুরে এক এসএসসি পরীক্ষার্থী (১৭) সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। সে এবার উপজেলার লক্ষনপুর স্কুল ও কলেজ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছে। এ ঘটনায় পুলিশ হাসান আলী ও মাসুদ নামে দুই ধর্ষণকারীকে গ্রেফতার করেছে। তারা দু’জনই একে অপরের বন্ধু । বুধবার রাত ১১টার দিকে এ ধর্ষনের ঘটনা ঘটে। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে আরো তিনজন পলাতক রয়েছে বলে পুলিশ জানায়। 
গ্রেফতারকৃতরা হলেন উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়নের বড় নিজামপুর গ্রামের মাছ ব্যবসায়ী শাহাজাহান মলি­কের ছেলে হাসান আলী (২০) ও একই গ্রামের রিজাউল করিমের ছেলে মাসুদ (২০)। এছাড়া এ ঘটনায় জড়িত একই ইউনিয়ের কন্দপপুর গ্রামের মিজান চৌকিদারে ছেলে নুরুজ্জামান (২৭), ফটিকের ছেলে সাকিব (২৮), জাহানের ছেলে নাসিম হোসেন (২৮) পলাতক রয়েছে।
স্কুলছাত্রীর স্বজনেরা জানান, ধর্ষনের শিকার স্কুলছাত্রীর মা অসুস্থতায় হাসপাতালে ভর্তি থাকায় বুধবার রাত ১১টার দিকে ফাঁকা বাড়িতে হাসান আলী তার বন্ধু মাসুদকে সাথে নিয়ে ওই বাড়িতে এসে স্কুলছাত্রীর ঘরে ঢুকে ধর্ষণ করে। একই সময়ে ঐ এলাকার তিন যুবক নুরুজ্জামান, সাকিব ও নাসিম দুই বন্ধু ও ভিকটিম কিশোরীকে আটক করে মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করে। একপর্যায়ে হাসান ও মাসুদকে মারধর করে আটকে রেখে নুরুজ্জামান, সাকিব ও নাসিম ওই ছাত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে পালিয়ে যায় বলে ছাত্রী তার পরিবারকে জানায়। পরে স্থানীয় লোকজন আটক হাসান আলী ও মাসুদকে গোড়পাড়া পুলিশ ক্যাম্পে খবর দিয়ে তাদের পুলিশের হাতে তুলে দেয়। গোড়পাড়া পুলিশ তাদের শার্শা থানায় নিয়ে আসে।
ধর্ষিতার পিতা, ভাইসহ প্রতিবেশিরা ধর্ষণের ঘটনার সাথে জড়িতদের বিচার দাবি করেন। এসএসসি পরীক্ষার্থীর সাথে এমন আচরনে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে প্রতিবেশীরাও।
এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সেলিম রেজা বিপুল বলেন, বিষয়টি আমি জানি না। তবে এমন একটি ঘটনা ঘটেছে এটা সাংবাদিকদের মাধ্যমে শুনেছি। এর বেশি কিছু জানি না।
শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন খান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ ঘটনায় দুইজনকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রীকে পুলিশ প্রহরায় পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পরীক্ষার পর তার জবানবন্দির জন্য যশোর আদালতে ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পলাতক ৩ জনকে গ্রেফতারে পুলিশী অভিযান চলছে। 
 

প্রিন্ট

আরও সংবাদ