খুলনা | রবিবার | ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ১৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৯

আজ বাদ জুম্মা শহিদ হাদিস পার্কে জানাজা

চিকিৎসক নেতা শওকত আলী লস্করের ইন্তেকাল

নিজস্ব প্রতিবেদক |
০১:৫৯ এ.এম | ০৪ নভেম্বর ২০২২


খুলনায় গরীবের ডাক্তার নামে খ্যাত শওকত আলী লস্কর (৬৮) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল­াহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন...আমরা তো আল­াহর এবং আমরা আল­াহর কাছেই ফিরে যাবো)। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটের দিকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৩ মেয়ে, একমাত্র ছেলে, নাত-নাতনী, আত্মীয়-স্বজনসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার ৩ মেয়ে, ছোট ভাই ও এক ভগ্নিপতি  চিকিৎসক ও একমাত্র ছেলে ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়ালেখা করছেন।  
তিনি বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল প্র্যাক্টিশনার্স এ্যাসোসিয়েশন (বিপিএমপিএ) খুলনা জেলা শাখা ও বাংলাদেশ প্রাইভেট হাসপাতাল ক্লিনিক এ্যান্ড ডায়াগনস্টিক ওনার্স এ্যাসোসিয়েশন (বিপিএইচসিডওএ) জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক, ডক্টরস এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ ড্যাবের মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক ডক্টরস পয়েন্টের চেয়ারম্যান, কিওর হোম ও সিটি ইমেজিং সেন্টারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন। 
বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টায় ঢাকার গুলশান সোসাইটি জামে মসজিদে প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। সেখান থেকে তার কফিন খুলনা মহানগরীর ইসলামপুর রোডস্থ বাসভবনে আনা হয়। আজ (শুক্রবার) বাদ জুম্মা শহিদ হাদিস পার্কে জানাজা শেষে টুটপাড়া কবরস্থানে দাফনের কথা রয়েছে।
এর আগে গত ১১ অক্টোবর ডাঃ শওকত আলী লস্করকে লান্সে সমস্যা জনিত কারণে খুলনার সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে ১৪ অক্টোবর এয়ার এ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় নেয়া হয়। ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়। এখানে চিকিৎসাধীন থাকাবস্থায় ডাঃ শওকত আলী লস্করের শারীরিক অবস্থার আরো অবনতি হলে তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল। 
শওকত আলী লস্কর ১৯৫৬ সালের ৫ অক্টোবর খুলনার দিঘলিয়া উপজেলার চন্দনীমহল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মৃত সোহরাব আলী লস্কর ও মাতার নাম মৃত হাসিনা বেগম। ৬ ভাই ও ২ বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন সকলের বড়। তিনি সেন্ট জোসেফ স্কুল থেকে এসএসসি ও সরকারি বিএল কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। ১৯৮১ সালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ থেকে তিনি এমবিবিএস  পাস করেছিলেন। এরপর তিনি দৌলতপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেডিকেল অফিসার হিসাবে যোগদান করেন। তিনি বটিয়াঘাটা ও পাইকগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেডিকেল অফিসার হিসাবে দায়িত্ব পালনকালে ১৯৮৪ সালে সরকারিভাবে ইরানে যান। ইরানের আজারভাইজান খাল হসপিটালে মেডিকেল অফিসার হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৯৪ সালে তিনি দেশে আসেন এবং খুলনা কিওর হোম হাসপাতাল নামে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। এরপর তিনি পদ্মার এপারে প্রথম আধুনিক চিকিৎসার জন্য সিটি ইমেজিং সেন্টার চালু করেন। সাধারণ ও অসহায় রোগীদের জন্য বিনামূল্যে বিভিন্ন ক্যাম্প এর মাধ্যমে চিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন। এভাবেই তিনি চিকিৎসা জগতে একজন গরীবের চিকিৎসক হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন। 
বিভিন্ন মহলের শোক : খুলনার বিশিষ্ট চিকিৎসক, ডক্টরস এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ ড্যাবের মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক ডাঃ শওকত আলী লস্করের (৬৮) মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ, মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন রাজিৈনতক দল ও পেশাজীবী সংগঠণের নেতৃবৃন্দ। 
বিবৃতিদাতারা হলেন বিএনপি’র কেন্দ্রীয় তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, মহানগর আহবায়ক এড. শফিকুল আলম মনা, সদস্য রকিবুল ইসলাম বকুল, জেলা  আহবায়ক আমির এজাজ খান, নগর সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিন, জেলা সদস্য সচিব মনিরুল হাসান বাপ্পি, নগর সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক তরিকুল ইসলাম জহির, জেলা সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক আবু হোসেন বাবু প্রমুখ। 
ডক্টরস এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ ড্যাবের খুলনা মেডিকেল কলেজ শাখার সভাপতি ডাঃ সেখ মোঃ আক্তারুজ্জামান অনুরূপ বিবৃতি দিয়েছেন।
বিএমএ খুলনা : বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন (বিএমএ) খুলনা শাখার আজীবন সদস্য ডাঃ মোঃ সওকাত আলী লস্করের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে সংগঠনটি। বিবৃতিদাতারা হচ্ছেন বিএমএ কেন্দ্রীয় বিএমএ এর সহ-সভাপতি ও খুলনার সভাপতি ডাঃ শেখ বাহারুল আলম, সাধারণ সম্পাদক ডাঃ মোঃ মেহেদী নেওয়াজ। 
অনুরূপ শোক প্রকাশ, মরহুমের বিদেহী আত্মার প্রতি মাগফিরাত কামনা ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন বিপিএমপিএ, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও জেলা সভাপতি ডাঃ গাজী মিজানুর রহমান, ডাঃ আর কে নাথ, ডাঃ মোঃ বোরহান উদ্দিন আহমেদ, ডাঃ এম. আর. খান, ডাঃ মোঃ মোস্তফা কামাল, ডাঃ এম এ হান্নান, অধ্যাপক ডাঃ বঙ্গ কমল বসু, ডাঃ গৌতম রায়, ডাঃ এম বি জামান, ডাঃ কাজি হাফিজুর রহমান, ডাঃ মোঃ মাহমুদ হাসান লেনিন, ডাঃ বিশ^জিৎ সরকার, ডাঃ মোঃ আব্দুস সবুর, ডাঃ শাহীন নওরোজী, ডাঃ অপু লরেন্স বিশ^াস, ডাঃ আবু মোঃ মঈনউদ্দিন-আল-আমিন, ডাঃ সৈয়েদা জাহানারা মাহমুদ, অধ্যাপক ডাঃ মনোজ কুমার বোস, ডাঃ কানিজ ফাহমিদা, ডাঃ মোল­া হারুন-অর-রশীদ, ডাঃ চন্দন কুমার সাহা, ডাঃ অনুপ কুমার দে, ডাঃ নুরসেরাত আহমেদ, ডাঃ আরিফা রহমান, ডাঃ নাজদান লস্কর ও ডাঃ মোঃ রকিবুল ইসলাম। 
অনরুপ বিবৃতি দিয়েছেন বিপিএইচসিডিওএ, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি, বিভাগীয় কমিটির সভাপতি ও জেলা সভাপতি ডাঃ গাজী মিজানুর রহমান, ডাঃ এম আর খান, ডাঃ মোঃ মোস্তফা কামাল, ডাঃ মোল­া হারুন-অর-রশীদ, ডাঃ এম. বি. জামান, ডাঃ বঙ্গ কমল বসু ডাঃ গৌতম রায়, মোঃ রুহুল আমিন, সাংবাদিক ফারুক আহমেদ, ডাঃ বিশ^জিৎ সরকার, ডাঃ সৈয়েদা জাহানারা মাহমুদ, বিপ্লব কুমার বিশ^াস, এড. মোঃ রফিকুল ইসলাম, ডাঃ এ টি এম মঞ্জুর মোর্শেদ, ডাঃ জগবন্ধু দাশ, অসিত বরণ বিশ^াস, শামিম আরা নীলা, পাপিয়া সরোয়ার শিউলি, বিধান চন্দ্র বিশ^াস, খন্দকার আহসান উল­াহ, মীর মনিরুজ্জামানসহ খুলনা জেলার শাখার সম্মানিত সদস্যবৃন্দ।
অনুরূপ শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন, বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির সভাপতি শেখ আশরাফ উজ্জামান, মহাসচিব মোহাম্মাদ আলী, শাহীন জামাল পন, নিজাম ইর রহমান লালু, অধ্যাপক মোঃ আবুল বাসার, মামনুরা জাকির খুকুমনি, মিজানুর রহমান বাবু, জেড এ মাহমুদ ডন, আরজুল ইসলাম আরজু, শেখ হাফিজুর রহমান হাফিজ, চৌধুরী মোঃ রায়হান ফরিদ, চৌধুরী মিনহাজ-উজ-জামান সজল, মাস্টার বদিয়ার, এড. শেখ হাফিজুর রহমান হাফিজ, মনিরুজামান রহিম, মিজানুর রহমান জিয়া, শেখ হাসান আফতেখার চালু, এস এম ইকবাল হোসেন বিপ্লব, রকিব উদ্দিন ফারাজী, রফিকুল ইসলাম সরদার, রবিউল ইসলাম, মিনা আজিজুর রহমান, মফিদুল ইসলাম টুটুল, শেখ আবিদুল­াহ, আবেদা সুলতানা, খুলনা বিভাগীয় ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মোঃ সেলিম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম বক্স দুদু, কার্যকরী সভাপতি বাবলু খলিফা, আবুল হোসেন কারফু, বজলু হাওলাদার, হুমায়ুন কবিরসহ কার্যকরী কমিটির সকল নেতৃবৃন্দ।
এছাড়া শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন খুলনা মহানগরী জামায়াতের আমীর মাওলানা আবুল কালাম আজাদ ও সেক্রেটারী অধ্যাপক মাহফুজুর রহমান।

প্রিন্ট

আরও সংবাদ