খুলনা | শনিবার | ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | ২২ মাঘ ১৪২৯

হঠাৎ মাথা ঘোরানো কীসের লক্ষণ

স্বাস্থ্য প্রতিবেদক |
০১:৫২ পি.এম | ২৬ ডিসেম্বর ২০২২


বসে কাজ করছিলেন। উঠে দাঁড়াতেই হঠাৎ মাথা ঘুরে উঠল। কয়েক সেকেন্ডের জন্য যা স্থায়ী ছিল। এমন সমস্যার সম্মুখীন হন অনেকেই। হালকা ভেবে এড়িয়ে যান। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন ভিন্ন কথা। তাদের মতে ছোট্ট এই বিষয়টি হৃদরোগ থেকে শুরু করে স্নায়ুর সমস্যার ইঙ্গিত দেয়। প্রায়ই এমটা হলে সতর্ক হওয়া জরুরি।

বেশ কিছু স্বাস্থ্যসমস্যার আগাম ইঙ্গিত দেয় মাথা ঘোরানো। চলুন এ সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিই-

হার্ট অ্যারিথমিয়া
হার্টবিট অনিয়মিত হলে এই সমস্যাকে হার্ট অ্যারিথমিয়া বলা হয়। এমনটা হলে হৃদস্পন্দন কখনো দ্রুত হয়, কখনো ধীর হয়। হৃদরোগ রয়েছে, এমন ব্যক্তিদের এই সমস্যা বেশি দেখা যায়। হৃদস্পন্দন অনিয়মিত হলে মস্তিষ্কে রক্ত সঞ্চালন অনিয়মিত হয়ে পড়ে। ফলে মাথা ঘুরে যাওয়ার মতো সমস্যা দেখা দেয়।

অর্থোস্ট্যাটিক হাইপোটেনশন
শোওয়া বা বসা অবস্থা থেকে উঠে দাঁড়ালে হঠাৎ রক্তচাপ কমে যেতে পারে। এই সমস্যাকে অর্থোস্ট্যাটিক হাইপোটেনশন বা পোস্টুরাল হাইপোটেনশনও বলা হয়। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এই সমস্যার আশঙ্কা বাড়ে। এই সমস্যার কারণে মাথা ঘুরায়।

পানিশূন্যতা 
শরীরে পানির পরিমাণ কমে গেলে অর্থাৎ ডিহাইড্রেশন দেখা দিলে হঠাৎ মাথা ঘোরানো সমস্যা দেখা দিতে পারে। পাশাপাশি বমিভাবও দেখা দিতে পারে।

ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া 
হৃদরোগ বা উচ্চ রক্তচাপের জন্য অনেকে নিয়মিত ওষুধ খান। এসব ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় মাথা ঘুরাতে পারে। এমন রোগীদের চিকিৎসক আগে থেকে সতর্কও করেন।

অতিরিক্ত কাজের চাপ 
সারাদিনের কাজের চাপে শরীর ও মনে প্রচণ্ড স্ট্রেস তৈরি হয়। এই স্ট্রেস স্নায়ুর ওপর প্রভাব ফেলে। যার ফলে মাথা ঘুরাতে পারে।

রক্তাল্পতা বা অ্যানিমিয়া
রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ কমে গেলে তাকে রক্তাল্পতা বা অ্যানিমিয়া বলা হয়। রক্তশূন্যতায় কিংবা অ্যানিমিয়ায় ভুগছেন এমন ব্যক্তিদের প্রায়ই মাথা ঘুরে যায়।

মাথা ঘোরানোকে অবহেলা করা উচিত নয়। চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করুন, সতর্ক থাকুন। 

প্রিন্ট

আরও সংবাদ