খুলনা | শুক্রবার | ২১ জুন ২০২৪ | ৭ আষাঢ় ১৪৩১

সেহরিতে মাইকে অতিরিক্ত ডাকাডাকি বিরক্তিকর : শায়খ আহমাদুল্লাহ

খবর প্রতিবেদন |
০২:৪৮ পি.এম | ২৮ মার্চ ২০২৩


ভোর রাতে সাহরির সময় মসজিদের মাইকে অতিরিক্ত ডাকাডাকি এবং গজল গাওয়ার প্রথা বন্ধ হওয়া উচিত। একটা সময় মানুষের প্রয়োজনেই হয়তো ডাকাডাকির এই প্রথা চালু হয়েছিল। কিন্তু এখন প্রতিটা বাড়িতেই ঘুম ভাঙানোর মতো দু চারটা এলার্ম ঘড়িবিশিষ্ট মোবাইল ফোন আছে। এ সময়ে এসে ঘুম ভাঙানোর জন্য মাইকের মাত্রারিক্ত ডাকাডাকি নিষ্প্রয়োজন; বরং বিরক্তিকর।

কারণ—সাহরির ওই সময়টা তাহাজ্জুদ এবং দোয়া কবুলের সময়। ওই সময় মাইকের আওয়াজ ইবাদতকারীদের ইবাদতে ব্যাঘাত সৃষ্টি করে। তাছাড়া ঋতুবতী নারী, অসুস্থ, শিশু এবং অমুসলিমদের ঘুমেরও ব্যাঘাত সৃষ্টি করে মাইকের আওয়াজ।

যেখানে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটিয়ে উচ্চস্বরে কোরআন তেলাওয়াত করতে নিষেধ করেছেন স্বয়ং রাসুল সা., সেখানে অনেক সময় ধরে মাইক বাজানো কতটা যুক্তিসঙ্গত এবং ইসলাম-সঙ্গত? হ্যাঁ, সাহরির শুরুতে এবং শেষে এক-দু বার ডেকে দেয়া যায়। কিন্তু লাগাতার ডাকাডাকি, গজল, হামদ-নাত গাওয়া মোটেও কাম্য নয়। আমাদের এই সকল কর্মকাণ্ডের জন্য অনেকে ইসলামের প্রতি বিতৃষ্ণ হয়ে যায়।

অনেকে হয়তো আজানের কথা বলবেন—ফজরের আজানের কারণেও তো ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে। আসলে আজান এবং সাহরির ডাকাডাকি দুটো ভিন্ন জিনিস। 
আজান ইসলামের শিআর। তাছাড়া আজান খুবই সংক্ষিপ্ত সময় নিয়ে হয় এবং ফজরের আজান গভীর রাতেও দেয়া হয় না। এ কারণে দুটোকে এক করে দেখার সুযোগ নেই।  

ইসলাম পরিমিতিবোধের ধর্ম। ইসলামের এই পরিমিতিবোধ সমাজের সকল স্তরে প্রয়োগ হলে আমাদের জীবন সহজ এবং সাবলীল হবে।

এখন আর কষ্ট করে গজল গাইতে হয় না। ইউটিউবে গজল ছেড়ে দিয়ে মুয়াজ্জিন সাহেবরা দায়িত্ব শেষ করেন। ফলে এর প্রাদুর্ভাব আরো বেড়েছে।

আমরা মাইকের ডাকাডাকি পুরোপুরি বন্ধ করার কথা বলিনি। ঘুম ভাঙানোর জন্য দু-একবার ডাকা যেতেই পারে। বিশেষত যেসব গ্রামের মানুষ এখনো মাইকের ডাকের ওপর নির্ভরশীল, সেখানে দু-একবার ডাকা যায়। এতে খুব বেশি সময় ক্ষেপন এবং বিরক্তির উৎপাদন করে না। কিন্তু ডাকাডাকির নামে গভীর রাত থেকে গজল বাজানো, ডাকাডাকি এগুলো কাম্য নয়। 

প্রিন্ট

আরও সংবাদ