খুলনা | সোমবার | ২০ মে ২০২৪ | ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

লোক দেখানো আমল মূল্যহীন

প্রফেসর ড. মুহাম্মদ ইউসুফ আলী |
০২:১১ এ.এম | ১৯ মে ২০২৩


রিয়া বা লোক দেখানো আমল মূল্যহীন। এটা এমন এক রোগ যা মানুষের আমলকে সমূলে ধ্বংস করে দেয়। কুরআন ও হাদীসে রিয়া বা প্রদর্শনেচ্ছার ভয়াবহতা সম্পর্কে অনেক সতর্ক করা হয়েছে। মহান আল­াহ তায়ালা বলেনঃ ‘হে মুমিনগণ! দানের কথা প্রচার করে এবং কাউকে খোটা দিয়ে তোমাদের দানকে নিষ্ফল করো না, (সূরা বাকারা: ২৬৪)। রিয়াকাররা সাধারণত লোক দেখানোর জন্য নামাজ, হজ্জ্ব ইত্যাদি আমল করে। এ ব্যাপারে আল­াহপাক এরশাদ করেনঃ ‘‘ধ্বংস ঐ সমস্ত নামাজ আদায়কারীদের জন্য যারা নামাজের ব্যাপারে উদাসীন এবং যারা লোকদেরকে দেখানোর উদ্দেশ্যে নামাজ পড়ে (সূরা আল মাঊন:৪-৫)। কুরআনের আরও অনেক আয়াত থেকে বুঝা যায় যে, লোক দেখানোর জন্য কৃত কোন আমল আল্লাহর কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। কারণ আল্লাহপাক কোন বিষয়েই শরিক পছন্দ করেন না। মুমিনের ইবাদত ধ্বংস করার জন্য শয়তানের অন্যতম ফাঁদ এই রিয়া। সহিহ হাদিসে পাওয়া যায়, যশ-খ্যাতি ও লোক দেখানোর জন্য আমল করার কারণে কিয়ামতের দিন একজন আলিম, একজন শহিদ ও একজন বড় দাতাকেও জাহান্নামে উপুড় করে নিক্ষেপ করা হবে (বুখারী ও মুসলিম)।  
মসজিদে দান করা হয়েছে ফ্যান। তাতে নাম লেখা রয়েছে ‘এখলাছুর রহমান’। মসজিদে ঝুলানো আছে নামাজের সময়সূচী সম্বলিত বোর্ড। তাতেও লেখা আছে দাতার নাম সৌজন্যের ঘরে। জনস্বার্থে তৈরি করা হয়েছে দাতব্য চিকিৎসালয় ও হাসপাতাল। সৌজন্যে লেখা আছে ‘আলহাজ্ব মোখলেছ উদ্দিন’। এখলাছের অর্থ শুধুমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য কোন কাজ করা। আর মোখলেছ অর্থ সেই ব্যক্তি যে সকল ভাল কাজ করে শুধুমাত্র আল্লাহর খুশির জন্য। কথা হলো, মোখলেছ যদি এখলাছের সাথে কাজ করে, অর্থাৎ শুধুমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য কাজ করে তাহলে দানের উপর তার নাম লেখার অর্থ কি? ভালো কোন কাজ করলে আজ বিলবোর্ড ও ব্যানারে দাতার ছবি বড় বড় করে প্রিন্ট করা হচ্ছে। জনস্বার্থে করা ব্রীজ-কালভার্ট, হাসপাতাল-ক্লিনিক, রাস্তা-ঘাট যাই করা হোক না কেন তার গায়ে দাতার নাম লেখা যেন আবশ্যক হয়ে গেছে। এই রোগ আজ সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ছে। পাঠক নিশ্চয় বুঝতে পারছেন, এই রোগের নাম প্রদর্শনেচ্ছা যা আরবিতে বলে রিয়া। আল­াহর জন্য করণীয় ইবাদত পালনের লোক দেখানো, প্রশংসা বা বাহবার ইচ্ছা পোষণ করাকেই রিয়া বলা হয়। 
বিভিন্ন হাদীসে রসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহিস সালাম রিয়াকে শিরকে আসগার (ছোট শিরক) এবং শিরকে খাফী (লুকায়িত শিরক) বলে আখ্যায়িত করেছেন। কারণ, বান্দা আল্লাহর জন্য ইবাদত করলেও অন্য সৃষ্টি থেকেও সেজন্য কিছু ‘পুরষ্কার’ বা প্রশংসা আশা করে আল­াহর সাথে অন্যকে শরিক করে। এ শিরকের কারণে একজন মুসলিম কাফির বলে গণ্য না হলেও তার ইবাদত কবুল হয় না। রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহিস সালাম বলেছেনঃ ‘‘আমি সবচেয়ে বেশি যে বিষয়টি তোমাদের ব্যাপারে ভয় পাই তা হলো শিরকে আসগার। সাহাবীগণ প্রশ্ন করেনঃ হে আল­াহর রসূল, শিরকে আসগার কী? তিনি বলেনঃ রিয়া বা প্রদর্শনেচ্ছা। কিয়ামতের দিন যখন মানুষদের তাদের কর্মের প্রতিফল দেওয়া হবে তখন মহান আল্লাহ এদেরকে বলবেন, তোমরা যাদের দেখানোর জন্য আমল করতে তাদের কাছ থেকে তার প্রতিদান নিয়ে নাও (মুসনাদে আহমদ)। আর এক হাদিসে মহানবী (সঃ) এরশাদ করেছেন, দাজ্জালের চেয়েও যে বিষয় আমি তোমাদের জন্য বেশি ভয় পাই, সে বিষয়টি কি তোমাদের বলব না? সাহাবারা বললেন, হ্যাঁ অবশ্যই বলুন। তিনি বলেন, বিষয়টি গোপন শিরক। গোপন শিরক হলো, একজন নামাজে দাঁড়াবে এরপর যখন দেখবে, মানুষ তার দিকে তাকাচ্ছে তখন সে নামাজ সুন্দর করবে (ইবনে মাজাহ)। রিয়া বা প্রদর্শনেচ্ছা মুমিনের আমলের জন্য অত্যন্ত ধ্বংসাত্মক। এ ব্যাপারে রসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহিস সালাম বলেছেন যে, দু’টি ক্ষুধার্ত বাঘকে একটি মেষপালের মধ্যে ছেড়ে দিলে বাঘ দু’টি মেষপালের যে ক্ষতি করবে, সম্পদ ও সম্মানের লোভ মানুষের দীনের তার চেয়েও বেশি ক্ষতি করে (তিরমিযী)। আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে সকলকে রিয়া মুক্ত রাখেন এবং আমাদের সকল আমল শুধুমাত্র মহান আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য করার তৌফিক দান করুন। আমীন। 
লেখক : মৎস্য বিজ্ঞানী ও অধ্যাপক, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, সিডনী থেকে।

প্রিন্ট