খুলনা | বৃহস্পতিবার | ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯ ফাল্গুন ১৪৩০

সাইকোথেরাপি প্রয়োগে ‘ম্যানিয়া’ চিকিৎসা সম্ভব

প্রকাশ চন্দ্র অধিকারী, মনোবিজ্ঞানী ও সাইকোথেরাপিস্ট |
০১:২৭ এ.এম | ২৬ ডিসেম্বর ২০২৩


ছন্দা : (ছদ্মনাম), বয়স ২৫ বছর। ইদানিং তার মেজাজে বেশ পরিবর্তন লক্ষণীয়। বর্তমানে তার চিন্তার জগৎও বেশ পরিবর্তনের ধারায় আবর্তিত। ইদানিং নতুন নতুন ভাবনা দ্বারা নিজেকে সে প্রকাশ করতে বেশ ব্যস্ত,  ভাবনা গুলো বেশ বৈচিত্র্য ধারায় প্রকাশিত।
জেসমিন : (ছদ্মনাম), বয়স ২৮ বছর। হঠাৎ করে সে নিজের যোগ্যতার তথা তার কর্মক্ষমতার সর্বোৎকৃষ্ট মান দেখাতে বেশ তৎপর বা সততা প্রস্তুত। বর্তমানে সে নিজের সামর্থ্যকে নিয়ে খুব গর্ব করতেও ভালোবাসে।  
উপরের বিষয় দু’টি ব্যক্তি অবস্থার হঠাৎ পরিবর্তনকে নির্দেশ করছে যা অনেকটা ব্যক্তির প্রচলিত ভাবধারা হতে ভিন্ন আঙ্গিকে প্রকাশিত। ব্যক্তির এরূপ প্রকাশমান ধারা অনেকটা অপ্রত্যাশিত যা পূর্বে কখনো হয়তো প্রতীয়মান হয়নি। ব্যক্তি অবস্থার হঠাৎ এরূপ পরিবর্তনকে ‘ম্যানিয়া’ হিসেবে অ্যাখ্যা দেওয়া যেতে পারে।
ম্যানিয়ার লক্ষণ: (ক) প্রথমত: ব্যক্তির ভিতরে স্বতন্ত্র সময় অস¦াভাবিকতা, অসহিষ্ণু মেজাজ এবং হঠাৎ করে অস্বাভাবিকভাবে কর্মদক্ষতা ও কর্মক্ষমতা বৃদ্ধিপায় যা কমপক্ষে এক সপ্তাহ যাবৎ বিরাজমান থাকবে এবং সপ্তাহের বেশিরভাগ দিন, প্রায় প্রতিদিন বর্তমান থাকবে, (খ) উক্ত মেজাজের বিকৃতি এবং কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিকালীন সময়ে ব্যক্তির ভিতর নি¤œলিখিত বৈশিষ্ট্য সমূহের কমপক্ষে তিনটি বৈশিষ্ট্য বর্তমান থাকতে হবে- (১) ব্যক্তির ভিতর হঠাৎ করে আত্মসম্মান অথবা আত্মমর্যাদা বৃদ্ধি পাওয়া, (৩) ঘুম একেবারে কমে যাওয়া বা অল্প কয়েক ঘন্টা (৩ ঘন্টা) ঘুমানো যদিও তখনো ঘুমের প্রয়োজন থেকে যায়, (৪) স্বাভাবিকের তুলনায় অতি দ্রুত গতিতে কথা বলা আর কথা বলতে শুরু করলে আর থামতে না চাওয়া, (৫) একই সময়ে অসংখ্য বিষয়ে নতুন নতুন চিন্তার উদয় হওয়া, (৬) গুরুত্বহীন বিষয় দ্বারা সহজে মনোযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়া, (৭) লক্ষ্য নির্দেশিত কার্যকলাপ বৃদ্ধি পাওয়া ও উদ্দেশ্যহীন ভাবে ঘোরাফেরা বিশেষ করে ঘরের বা অফিসের বিভিন্ন রুমের ভিতর প্রয়োজন ব্যতিরেকে পায়চারি করা (৯) বিভিন্ন অদূরদর্শী কজে নিজেকে নিয়োজিত করা। উলে­খ্য- (গ) উক্ত মেজাজের বিকৃতি অবশ্যই ব্যক্তির পারিবারিক, সামাজিক ও পেশাগত জীবনে সমস্যা সৃষ্টি করে থাকবে। (ঘ) ব্যক্তির মধ্যে উক্ত মেজাজের বিকৃতি কোন মাদক অথবা অপদ্রব্য গ্রহণ করার প্রভাবে সৃষ্টি হবে না। 
যে সব কারণে ম্যানিয়া হতে পারে : (১) পারিবারিক ইতিহাস- পরিবারের কোন সদস্যের যদি দ্বিমেরু অসুস্থতা বা ম্যানিয়া থাকে তবে তাদের পরিবারের সদস্যদের ম্যানিয় বিকাশ লাভ করার সম্ভাবনা বেশি। (২) ব্রেনের রাসায়নিক অসামঞ্জস্যতা-ব্রেনের নিউরোট্রান্সেমিটারে অসামঞ্জস্যতা দেখা দিলে ব্যক্তির ভিতর ম্যানিয়া বিকাশ লাভ করতে পারে। (৩) পার্র্শ্বপ্রতিক্রিয়া জনিত কারণÑ ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে বিশেষ করে বিষণœ বিরোধী ঔষধ অতিমাত্রায় বা অনিয়ন্ত্রিয় মাত্রায় গ্রহণের ফলে অনেক সময় ব্যক্তির ভিতর ম্যানিয়া বিকাশ লাভ করতে পারে। (৪) উচ্চ মাত্রায় স্ট্রেস- ব্যক্তি ভিতর কোন কারণে উচ্চমাত্রায় স্ট্রেস দেখা দিলে ম্যানিয়া বিকাশ লাভ করতে পারে। (৫) জীবনবোধে পরিবর্তন- হঠাৎ করে জীবন ধারায় চলমান পরিস্থিতে পরিবর্তন (যা কখনো প্রত্যাশিত নয়) দেখা দেওয়ার কারণেও ব্যক্তির মধ্যে ম্যানিয়া বিকাশ লাভ করতে পারে। (৬) ঘুমজনিত কারণেÑ ব্যক্তির ক্ষেত্রে ঘুমের ঘাটতি হলে বা ঘুমের ধরণে (প্যাটার্ণ) পরিবর্তন দেখা দিলে ম্যানিয়া বিকাশ লাভ করতে পারে। (৭) মানসিক আঘাত-ব্যক্তি কোন বিষয় বা ঘটনার দরুন হঠাৎ কোন জোরালো মানসিক আঘাত পেলে, তার থেকে ব্যক্তি ভিতর ম্যনিয়া বিকাশ লাভ করতে পারে। 
ম্যানিয়ার চিকিৎসা : (১) শারীরিক ব্যায়াম করুন: দিনের একটি নির্দিষ্ট সময় করে ব্যায়াম করুন। এতে আপনার মন ভালোবোধ হবে। (২) পুষ্টিকর খাবারের সাথে থাকুন- পুষ্টিকর খাবার (যেমন- ডিম, দুধ, কলা, ফল ও শাকসবজি) খেতে হবে। এত করে শারীরিক পরিপুষ্ট তথা ব্রেনের পুষ্টি অর্জিত হবে এবং ম্যানিয়ার মত সমস্যা সমূহ দূর হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। (৩) যথাযথ ঘুমের উপর জোর দিন- যথাযথ ও ভালো ঘুম হলে আমাদের শরীর ও ব্রেন দিনের কর্মব্যস্ততা জনিত ব্যয়িত শক্তি ফিরে পায়। ফলে আমাদের মন ও শরীর ভালো থাকে। (৪) উত্তেজক পরিবেশ এগিয়ে চলুন- পরিবেশ সংক্রান্ত যে সব বিষয় আমাদের মনকে উত্তেজিত করতে পারে (যেমন- জনতার ভীড়, উচ্চ শব্দ) সম্ভব হলে সে সব পরিস্থিতি এড়িয়ে চলুন। প্রয়োজনে একজন দক্ষ মনোবিজ্ঞানীর পরামর্শ গ্রহণ করা যেতে পারে। 
লেখক: বিসিএস (শিক্ষা) কর্মকর্তা, কাউন্সেলিং ও সাইকোথেরাপির এর উপর বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত, পরামর্শের জন্য যোগাযোগ-০১৭১৪৬১৬০০১।

প্রিন্ট

আরও সংবাদ