খুলনা | বৃহস্পতিবার | ২৫ এপ্রিল ২০২৪ | ১১ বৈশাখ ১৪৩১

বলিউডে কীভাবে জায়গা পেলেন জয়া আহসান

খবর বিনোদন |
১১:৪৫ পি.এম | ২৮ জানুয়ারী ২০২৪


শাহরুখ, আমির, সালমানদের বলিউডে নাম লেখানো সহজ কথা নয়। সারা ভারত থেকে অসংখ্য অভিনয়শিল্পী প্রতিদিন বলিউডে কাজের জন্য ভিড় জমাচ্ছেন। শুধু তা-ই নয়, ভারতের অনেক ইন্ডাস্ট্রির নামকরা অভিনয়শিল্পীরাও বলিউডে অভিনয়ে সুযোগ পেতে হিমশিম খাচ্ছেন। তার চেয়ে বড় কথা, বলিউডে আপাতদৃষ্টে দেখলে অভিনয়শিল্পীর সংকট নেই। সেই বলিউডে নাম লিখিয়েছেন বাংলাদেশের অভিনেত্রী জয়া আহসান। অভিষেকেই যেন বাজিমাত। বলিউডের অসংখ্য তারকার ভিড়ে কীভাবে জায়গা পেলেন জয়া, সেই প্রশ্নই ঘুরেফিরে শোনা যাচ্ছে।
এক দশকের বেশি সময় আগে কলকাতার সিনেমায় নাম লিখিয়েছেন জয়া। এ সময় টালিউডে তাঁর একাধিক সিনেমা ব্যবসা সফল হলেও বলিউডের সিনেমায় কেন নাম লেখাচ্ছেন না? এ প্রশ্ন প্রায়ই শুনতে হয়েছে জয়াকে। সেই জয়া প্রথম ‘কড়ক সিং’ দিয়ে বলিউডে নাম লেখালেন। তাঁর বিপরীতে ছিলেন ভারতের জনপ্রিয় অভিনেতা পঙ্কজ ত্রিপাঠি। ইতিমধ্যে সিনেমাটি নিয়ে উষ্ণ প্রশংসায় ভাসছেন জয়া।
জয়া আহসান বলেন, ‘আমার শিকড় তো বাংলাদেশ। দেশের আবহে বেড়ে ওঠা। এখানে নাটকে অভিনয় করেছি। পরবর্তী সময়ে মনে হলো সিনেমা করি। করেছিও। তারপর একটু একটু করে ডালপালা ছড়াতে থাকে। সেই ডালপালা আগের চেয়ে আরেকটু বেশি মিলেছে কলকাতায়। এখানেই থেমে থাকেনি। ইরানি সিনেমায় অভিনয় করলাম। বলিউডে অভিনয়ের সুযোগ হলো। একজন অভিনয়শিল্পী তো আসলে কখনো নির্দিষ্ট গন্ডির মধ্যে আটকে থাকে না। আমি হয়তো সব সময় সেই চেষ্টাই করছি। সেখানে প্রতিটা ইন্ডাস্ট্রিতে কী কাজ করছি, সেটা নিয়ে কথা হচ্ছে। এগুলো ভালো লাগে।’
এর আগেও বলিউডের একাধিক সিনেমায় অভিনয়ের প্রস্তাব পেয়েছেন জয়া। কিন্তু ব্যাটে-বলে না মেলায় কাজগুলো করেননি। তিনি ভালো চরিত্রের সন্ধানে ছিলেন। সেখানে ‘কড়ক সিং’-এ ‘নয়না’ চরিত্রের প্রস্তাবের পর আর ‘না’ করতে পারেননি। অবশেষে সেই চরিত্র নিয়ে ভক্তদের কাছ থেকে প্রশংসা পাচ্ছেন। এত বড় আয়োজনের সিনেমা, এত তারকা, চ্যালেঞ্জিং চরিত্র এসব কারণে কিছুটা চাপ নিতে হয়েছে জয়াকে। চরিত্র ছাড়া অন্য কিছুই মাথায় ছিল না তাঁর।
‘আমি যেসব চরিত্র করি, সেখানে প্রতিটা গল্পে চরিত্রের আলাদা একটা বৈচিত্র্য থাকে। চরিত্রটির গভীরতা থাকে। নিজের ভালো লাগার মতো বিষয় থাকে। চ্যালেঞ্জিং বিষয় থাকে, সেটাই আমাকে টানে। আর জনপ্রিয়তা পাব কি না, সেটা কখনোই ভাবি না। এগুলো আমাকে ভাবায় না। কাজ করছি ঠিক আছে বলেই। সে নিয়ে দর্শক যখন কথা বলেন, তখন ভালো লাগে। মনে হয় বোনাস হিসেবে কিছু পেলাম,’ বলেন জয়া আহসান।
জনপ্রিয় সব অভিনয়শিল্পীর ভিড়ে বলিউডের প্রথম সারির গণমাধ্যমগুলোর সালতামামিতে জায়গা পাওয়াকে ক্যারিয়ারের অন্য রকম এক প্রাপ্তি বলে মনে করেন জয়া। সিনেমাটি মুক্তির পর বেশ কিছু জাতীয় গণমাধ্যমের সমালোচনা দেখে চমকে গিয়েছেন জয়া। তিনি বলেন, ‘আমি তাঁদের কাউকে চিনি না, জানি না, অথচ তাঁরা আমার কাজ দেখে মূল্যায়ন করেছেন। এতটা রিকগনিশন পাব ভাবিনি। এই প্রাপ্তি পুরো টিমের। সবার জায়গা থেকে সবাই ভালো করেছেন।’
‘সবার মধ্যে আলাদা করে জয়া আহসান ভক্তদের নজর কেড়েছেন...’ প্রশ্ন শেষ হওয়ার আগেই জয়া বলেন, ‘দেখেন, যাঁরা সিনেমাটি দেখছেন, সবাই কিন্তু গল্পও পছন্দ করেছেন। অনেক দৃশ্যের গভীরতা নিয়ে প্রশ্ন করেছেন। এমন অনেক দৃশ্য ছিল, যেখানে কথা না বলেও অনেক কিছু বলা হয়েছে। তা ছাড়া আমার সহকর্মীদের মধ্যে পঙ্কজ ত্রিপাঠি, পার্বতী, সঞ্জনা সাংঘি তাঁরাও কিন্তু ভালো করেছেন। আর এই মুনশিয়ানা পরিচালকের। সবকিছু মিলে যখন আলাদা করে কেউ নয়নাকে নিয়ে কথা বলেন, তখন মনে হয়, ঠিকঠাকমতো ফুটিয়ে তুলতে পেরেছি। এমন না যে সব কৃতিত্ব আমার।’
হিন্দুস্তান টাইমস জয়া আহসানের ছবি দিয়ে ‘কড়ক সিং’-এ তাঁর অভিনয়ের প্রশংসা করেছে। প্রতিবেদনে জয়া সম্পর্কে লেখা হয়েছে, ‘অনিরুদ্ধ রায় চৌধুরীর পরিচালনায় সিনেমাটিতে পঙ্কজ ত্রিপাঠির প্রেমিকার চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয় করেছেন এই বাংলাদেশি অভিনেত্রী।’ ‘কড়ক সিং’ সিনেমায় জয়া আহসানকে দেখা গেছে পঙ্কজ ত্রিপাঠির প্রেমিকার চরিত্রে।
বাংলাদেশের দর্শকদের মন আগেই জয় করেছেন। এবার কলকাতা ছাড়িয়ে বলিউডের দর্শকদের কাছেও পরিচিতি পাচ্ছেন জয়া। অনিরুদ্ধ রায় চৌধুরীর সিনেমাটির সঙ্গে কীভাবে যুক্ত হলেন, জানতে চাইলে জয়া বলেন, ‘দাদার কাজে এই প্রথম অভিনয় করা হলো। দাদার সঙ্গে কিন্তু প্রথম দিকে আমার পরিচয় ছিল না। এমন নয় যে লবিং করে কাজ পেয়েছি। আমি যত দূর শুনেছি, আমার কাজগুলো দেখেই দাদা আমাকে ডেকেছেন। চরিত্রের জন্য পছন্দ করেছেন। আমি আর কী বলব, দাদার কাছে জানতে চান। দাদা বলতে পারবেন কেন জয়াকে নিয়েছেন!’
অনিরুদ্ধ রায় চৌধুরীর সঙ্গে কথার শুরুতেই এল জয়া আহসানের প্রসঙ্গ। তিনি বললেন, ‘জয়া অনেক ভালো করেছে। ওর কিছু দৃশ্য আমার অনেক পছন্দের তালিকায় থাকবে। আমি যেভাবে জয়ার চরিত্র ভেবেছিলাম, সেভাবেই পেয়েছি। অনেকেই ওর কথা বলছে। অন্যরাও ভালো করেছে। তাদের প্রশংসা করছে। কী বলব, সিনেমা মুক্তির পর যা হয়, সব মিলিয়ে এই নিয়েই আছি। অনেক ভালো সাড়া পাচ্ছি “কড়ক সিং” সিনেমা নিয়ে।’
আপনার সিনেমা দিয়েই জয়া আহসানের বলিউডে অভিষেক হলো, জয়াকে কীভাবে সিনেমাটির সঙ্গে যুক্ত করা? এমন প্রশ্নে ‘পিংক’, ‘অন্তহীন’, ‘অনুরণন’, ‘লস্ট’ খ্যাত সিনেমার এই পরিচালক বলেন, ‘অনেক আগে থেকেই জয়ার কাজের সঙ্গে পরিচয়। ওর “দেবী”, “বিসর্জন”সহ বেশ কিছু সিনেমা দেখেছি। সেগুলোয় ওকে দেখতাম চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে। সেগুলো নিয়ে ওর সঙ্গে দেখা হয়েছে, কথা হয়েছে। আমি একটা তক্কে তক্কে ছিলাম। অপেক্ষা করছিলাম ওর জন্য ভালো একটি চরিত্র পেলে প্রস্তাব দেব। কিন্তু সুযোগ হচ্ছিল না। যখন “নয়না” চরিত্রটি মাথায় আসে, তখন জয়ার কথা ভাবি। জয়াকে বলি। ওর চরিত্রটি পছন্দ হয়। এভাবেই ওকে সিনেমায় নেওয়া। ওকে আমার পরের সিনেমায় নিচ্ছি। তিন-চার মাসের মধ্যে শুটিং শেষ করব। এবারও চরিত্রে অনেক রহস্য রয়েছে। জয়াকে দর্শক পছন্দ করবেন।’ ‘কড়ক সিং’ ওটিটি প্ল্যাটফর্ম জি-ফাইভে মুক্তি পায়। সবশেষে জয়া জানালেন, বলিউডে আবার কাজ করবেন। তবে সেটা সময় হলেই জানাবেন।